বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে গঠিত হবে সার্বজনীন পেনশন তহবিল

জুলাই ১৬, ২০১৯ | ২:৩২ অপরাহ্ণ

হাসান আজাদ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে গঠিত হবে সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থার তহবিল। চাকরিজীবী ও নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে এই তহবিলে অর্থ দেবেন। অর্থের পরিমাণও সমান হবে। সরকারি ও বেসরকারিখাতে একইভাবে এই তহবিল গঠনের বিধান রেখে সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা নীতিমালার খসড়া চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, খসড়া নীতিমালা তৈরির কাজ প্রায় শেষ করে এনেছে এ সংক্রান্ত গঠিত কমিটি। চলতি মাসের শেষে খসড়া নীতিমালা অর্থ সচিবের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

প্রসঙ্গত, দেশের ছয় কোটি কর্মজীবীর মধ্যে পাঁচ কোটি ৮০ লাখই কাজ করেন বেসরকারি খাতে। কিন্তু সরকারি কর্মজীবি ছাড়া চাকরি জীবন শেষে অন্য চাকরিজীবিরা কোনো অর্থ পান না।

নীতিমালা প্রণয়নে গঠিত সাত সদস্যের কমিটির প্রধান অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আজিজুল আলম এ প্রসঙ্গে বলেন, পেনশন কাঠামোর একটি খসড়া আমরা তৈরি করেছি। বিভিন্ন দেশের পেনশন কাঠামো ও আইনি বিষয়গুলো পর্যালোচনা করে এই খসড়া তৈরি করা হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা আশা করছি এ মাসের শেষে নীতিমালার খসড়া অর্থ সচিবের কাছে জমা দিতে পারবো। খসড়া হওয়ার পর সরকার বেসরকারি খাত সংশ্লিষ্ট ও অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে বসে নীতিমালা চূড়ান্ত করবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থার খসড়ায় পেনশন তহবিল অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে করার কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ চাকরিজীবী ও নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে এ তহবিলে অর্থ দেবে। এর পরিমাণ চাকরিজীবীর মূল বেতনের ১০ শতাংশ হতে পারে। নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষও সমপরিমাণ অর্থ দেবে।

বিজ্ঞাপন

পাশাপাশি এ তহবিল ব্যবস্থাপনার জন্য একটি রেগুলেটরি অথরিটি থাকার কথা বলা হয়েছে খসড়ায়। এ অথরিটির মাধ্যমে পেনশন কার্যক্রম পরিচালিত হবে। প্রস্তাবিত পেনশন স্কিমের আওতায় সরকারি চাকরিজীবীদের বয়স ৬০ বছর এবং বেসরকারি খাতের জন্য ৬৫ বছর ধরা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে চাকরি শেষে অর্ধেক পেনশনের টাকা এককালীন তোলা যাবে। বাকি টাকা তহবিলে থাকবে। সে অর্থ পরে প্রতি মাসে ধাপে ধাপে উঠানো যাবে।

তহবিল পরিচালনার জন্য আলাদা রেগুলেটরি অথরিটি গঠন করার কথাও বলা হয়েছে। এই অথরিটি লাভজনক খাতে তহবিলের অর্থ বিনিয়োগ করবেন। বিনিয়োগ থেকে প্রাপ্ত মুনাফার অংশ সুবিধাভোগীরা মাসে মাসে পাবেন। এছাড়া পেনশনভোগীদের স্মার্টকার্ড দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। পেনশন স্কিমে ৫ থেকে ১০ শতাংশ হারে বার্ষিক ইনক্রিমেন্টের সুবিধা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, পেনশন নীতিমালা চূড়ান্ত করার পর প্রথমে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এর আওতায় আনা হবে। তারপর পর্যায়ক্রমে বেসরকারি খাতের চাকরিজীবী ও অন্যান্যদের এ পেনশনের আওতায় আনা হবে। এতে বেসরকারি খাতের চাকরিজীবীদের সার্বজনীন পেনশনের আওতায় আনতে সময় লাগবে অন্তত তিন বছর।

সার্বজনীন পেনশন পদ্ধতির আওতায় বেসরকারি পর্যায়ে প্রাথমিকভাবে বড় বড় করপোরেট হাউস, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিতে কর্মরত চাকরিজীবীদের আনার প্রস্তাব করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে অন্য খাতের প্রতিষ্ঠানকে আনার কথা বলা হয়েছে।

সারাবাংলা/এইচএ/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন