রবিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

‘রাষ্ট্রকে উঁইপোকার মতো খেয়ে ফেলেছে সন্ত্রাস’

জুলাই ১৬, ২০১৯ | ৫:৫৬ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিচারকের খাস কামরায় নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘সন্ত্রাস উঁইপোকার মতো রাষ্ট্র-সমাজকে ভেতর থেকে খেয়ে ফেলেছে।’

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘দেশে আইনশৃঙ্খলার ভয়াবহ অবনতি হয়েছে। কুমিল্লা আদালতের বিচারক, কর্মকর্তা, পুলিশ, আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের সামনে একজন আসামি আরেকজন আসামিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। দেশে কি ভয়ংকর পরিস্থিতি হলে একজন বিচারক এজলাসে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসের নিরবচ্ছিন্নতা ও প্রসারে দেশজুড়ে জনগণের মধ্যে নীরব আতঙ্ক বিরাজ করছে। গুম, খুন, ধর্ষণ, হামলা-মামলা, নারী-শিশুদের ওপর পাশবিক নির্যাতন, প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে হত্যা, আগুনে পুড়িয়ে লোমহর্ষক কায়দায় হত্যাসহ দেশ ভরে উঠেছে অনাচার অবিচারের মহামারিতে। আর অবৈধ সরকার ব্যস্ত ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতে।’

বিজ্ঞাপন

প্রশাসন, বিচার ও আইনি ব্যবস্থায় গণবিরোধী নীতি কার্যকর আছে বলেই সরকারি যন্ত্র ক্ষমতাসীনদের পক্ষে কাজ করছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘এই যন্ত্রই ২৯ ডিসেম্বর মধ্যরাতে ভোট বাক্স ভরতে সহযোগিতা করেছে এবং জনগণকে ভোটকেন্দ্রের ত্রিসীমানায় ঘেঁষতে না দিয়ে অবৈধভাবে গদি দখলে সরকারকে সহযোগিতা করেছে।’

‘ফলে তারা আর সরকারের আদেশ নির্দেশ তোয়াক্কা করছে না। তারাও এই অবৈধ সরকারকে রক্ষার ব্রত নিয়ে ভোটবঞ্চিত জনগণের প্রতিপক্ষ হিসেবে কাজ করছে। এই রাষ্ট্র কার্যতঃ অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হচ্ছে। এখন পরিস্থিতি দেখে মনে হয় দেশে কোনো সরকারই নেই’— বলেন রিজভী।

তিনি বলেন, ‘সরকারের কোপানলে পড়ে খালেদা জিয়া এখন কারাগারে। দেশের সর্বস্তরের মানুষের প্রাণপ্রিয় নেত্রীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আগামী ১৮ জুলাই বরিশাল, ২০ জুলাই চট্টগ্রাম ও ২৫ জুলাই খুলনায় মহাসমাবেশ কর্মসূচি সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। জেলা-উপজেলায় প্রস্তুতি সভা হচ্ছে। এই শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশগুলোতে যোগ দিতে মানুষের আগ্রহের কোনো কমতি নেই। মহাসমাবেশ ঘিরে সাধারণ জনগণের অভাবনীয় সাড়া দেখে সরকারের চিত্তচাঞ্চল্য বৃদ্ধি পেয়েছে।’

‘সমাবেশের নামে অতীতের মতো কোনো বিশৃঙ্খলা বা ভাংচুর সহ্য করা হবে না। জনগণ ও রাষ্ট্রের যেকোনো ক্ষতিসাধনের বিরূদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে’— আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, ‘আপনি যে বিশৃঙ্খলার কথা বলছেন, সেটিই তো উসকানিমূলক, একটা অশুভ উদ্দেশ্য নিয়েই এ ধরনের বক্তব্য দিচ্ছেন।’

‘শান্তিপূর্ণ পরিবেশ না থাকলে তো কোন সমাবেশই হবে না, নিজেদের আয়োজনে নিজেরাই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করব, এই কথা কেউ বিশ্বাস করবে? পুলিশ ও মাস্তানদের তাণ্ডবের মাধ্যমে বিরোধীদলের সভা পণ্ড করার ইতিহাস ঐতিহ্য আপনাদেরই। বিশৃংখলা সৃষ্টি করেন আপনারা। আমাদের সব কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ ছিল, আছে এবং থাকবে। কোনো উসকানিমুলক কথা বলে আমাদের নিবৃত্ত করতে পারবেন না’— হাছান মাহমুদের উদ্দেশে বলেন রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. সুকোমল বড়ুয়া, কবির মুরাদ, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা হুমায়ুন কবিরসহ অন্যরা।

সারাবাংলা/এজেড/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন