রবিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন আবাহনীকে উড়িয়ে দিল মোহামেডান

জুলাই ১৬, ২০১৯ | ৯:১১ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

মিরাকেল বলবেন না অলৌকিক বলবেন? কোনো উপমা দিয়েও যেন ব্যাখ্যা করা কঠিন আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচটিকে। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে (বিপিএল) যেখানে দিনে দিনে ধুঁকছে মোহামেডান, সেখানে এএফসি কাপ ও লিগে উড়তে থাকা ঢাকা আবাহনীকে গোল উৎসবে ভাসালো মোহামেডান।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আবাহনীকে ৪-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে মোহামেডান।

এক সময় সোনালী অতীতে দেশের ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে বড় দ্বৈরথের নাম ছিল এ ম্যাচ, গত চার আসরে সেটা যেন ভুলেই গিয়েছিল ফুটবল সমর্থকরা। কেননা সবশেষ ২০১৫ সালে বিপিএলের অষ্টম আসরে আবাহনীকে হারিয়েছিল মোহামেডান। দীর্ঘ চার বছরে আবাহনীর রাজত্ব ও প্রভাবে প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে মতিঝিলের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি।

বিপিএলের এগারতম আসরে এসে সেই চার বছরের দীর্ঘ অপেক্ষার জবাব কড়ায় গণ্ডায় বুঝিয়ে দিল মোহামেডান। এএফসি কাপে ইতিহাস সৃষ্টি করা আবাহনীকে চমক দেখিয়ে বড় জয় তুলে নিয়েছে মোহামেডান।

বিজ্ঞাপন

মাঠে আর গ্যালারি দুই জায়গায় পুরো ম্যাচ মাতালো মোহামেডান। ম্যাচের ১৬ মিনিটে তাণ্ডব শুরু। সুলায়মান ডায়াবেটের পাস থেকে তকলিসের মাটি কাঁপানে শটে লিড নেয় মোহামেডান। প্রথমার্ধ্বের অতিরিক্ত সময়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সিন লেনের শিষ্যরা। এবারও গোল তকলিসের দখলে। এবার জাহিদ হাসান এমিলির পাস থেকে তকলিসের দ্বিতীয় আঘাত। তার জোড়া গোলের আঘাতে ২-০ ব্যবধানে প্রথমার্ধ শেষ করে মোহামেডান।

ম্যাচের ৫০ মিনিটে এবার একাই মাঝমাঠ থেকে গোল করে মোহামেডানকে আরও এগিয়ে দেন ডায়াবেট। মালির এই ফুটবলার পরে আরও একটি গোল করান এমিলিকে দিয়ে। ৬৬ মিনিটে ডি বক্সের ডান প্রান্ত থেকে ঠান্ডা মাথায় বল উড়িয়ে পাস দেন দৌড়ে আসতে থাকা এমিলিকে। দারুণ হেডে আবাহনীর গোলরক্ষককে বোকা বানান এমিলি। এই ৪-০ ব্যবধানেই ম্যাচ শেষ হলে লিগের পঞ্চম জয় তুলে নেয় মোহামেডান।

এ জয়ে ২০ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে নয়ে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। অন্যদিকে ২১ ম্যাচে ৫১ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ঢাকা আবাহনী।

সারাবাংলা/জেএইচ/এমআরপি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন