শনিবার ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৩ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

আদালতের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হাইকোর্ট

জুলাই ১৭, ২০১৯ | ২:২৭ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: কুমিল্লার আদালতে খুন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতিতে বাদী-বিবাদীর হাতাহাতির ঘটনার পর সারাদেশের আদালতের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

আদালত বলেছেন, আইনজীবী ও বিচারকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত না হলে ন্যায় বিচার নিশ্চিত হবে না। একটা ছুড়ি নিয়ে কোর্টের ভিতরে কিভাবে যায়, ডেফিনেটলি (নিশ্চিতভাবে) এটা পুলিশের ব্যর্থতা বলেও মন্তব্য করেছেন আদালত।

সারাদেশের আদালতে আইনজীবী, বিচারক ও কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা চেয়ে দায়ের করা রিটের শুনানি নিয়ে বুধবার (১৭ জুলাই) বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের এ মন্তব্য করেন।

এ সময় সারাদেশের আদালতে আইনজীবী, বিচারক ও কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে কুমিল্লার ঘটনায় যারা নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলো তাদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তাও জানাতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে নির্দেশ দেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

কুমিল্লার আদালতে ছুরিকাঘাতে আসামি নিহত হওয়ার পর বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত চেয়ে হাইকোর্টের আইনজীবী ইসরাত হাসান রিট দায়ের করেন। আজকে ওই রিটের শুনানি হয়।

শুনানিতে আদালত বলেন, কুমিল্লার পর সুপ্রিমকোর্ট বারেও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এ অবস্থায় কোর্টে আইনজীবী, বিচারক ও কর্মকর্তাদের সিকিউরিটির জন্য কী পদক্ষেপ নিলেন।

তখন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলেন, কুমিল্লা এবং সুপ্রিম কোর্ট বারের ২টি ঘটনাই ব্যক্তিগত।

এ সময় আদালত বলেন, ‘ব্যক্তিগত হোক আর যাই হোক। কোর্টের ভেতরে ছুরি নিয়ে কিভাবে যায়? পুলিশ কি করে? ডেফিনেটলি এটা পুলিশের নেগলিজেন্স।’

তখন আবেদনকারী আইনজীবী বলেন, নিরাপত্তা তো সবার জন্য। উনিও (রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী) এমন পরিস্থিতিতে পড়তে পারেন। তাই আইনজীবী, বিচারকসহ সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

এরপর আদালত ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে সারাদেশের আদালতে আইনজীবী, বিচারক ও কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা এবং কুমিল্লার ঘটনায় যারা নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলো তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানাতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে নির্দেশ দেন।

সে পর্যন্ত রিট আবেদনটি স্ট্যান্ডওভার (মুলতবি) রাখেন।

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই কুমিল্লা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এক আসামি কর্তৃক আরেক আসামির খুন হয়।

এদিকে গতকাল সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে একটি হত্যা মামলার আসামির জামিনকে কেন্দ্র করে বাদী-বিবাদীর মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়।

সারাবাংলা/এজেডকে/জেএএম

বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন