রবিবার ১৮ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৩ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

১১ জনের মৃত্যুর পর লাইনম্যান পেল উল্লাপাড়ার সেই রেলক্রসিং

জুলাই ১৯, ২০১৯ | ৩:৪৯ পূর্বাহ্ণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বেতকান্দির অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের বর-কনেসহ ১১ জনের মৃত্যুর পর সেখানে দুইজন সিগন্যালম্যান নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এদের মধ্যে একজন সিগন্যালম্যান বিপ্লব কুমার দাস (৩০) বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে কাজে যোগ দিয়েছেন। শনিবার (২০ জুলাই) আরও একজন যোগ দেবেন।

একইস্থানে আর যেন দুর্ঘটনা না ঘটে সেজন্য ওই রেলক্রসিংয়ের দক্ষিণে দুই পাশের প্রায় আধা কিলোমিটার এলাকার গাছপালা কেটে ফেলা হয়েছে।

রেল বিভাগের পার্মামেন্ট ওয়ে ইন্সপেক্টর (পিডব্লিউআই) পলাশ হোসেন জানান, দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে কাজ শুরু করেছে রেল বিভাগ গঠিত ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি। এছাড়া একজন লাইনম্যান এরইমধ্যে কাজ শুরু করেছেন, অন্যজনও শনিবার যোগ দেবেন।

বিজ্ঞাপন

মাইক্রোবাসে ট্রেনের ধাক্কা, বর-কনেসহ ৯ জনের মৃত্যু

গত১৫ জুলাই সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে ঢাকা-ঈশ্বরদী রেলপথে উল্লাপাড়া উপজেলার পঞ্চক্রোশী এলাকার অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বরযাত্রীবাহী একটি মাইক্রোবাসকে পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেন ধাক্কা দিলে সব মিলিয়ে ১১জনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার কারণে বন্ধ থাকে রাজশাহীর সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ।

সেসময় পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগের পাকশীর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) মিজানুর রহমান জানিয়েছিলেন, উল্লাপাড়া উপজেলার বেতকান্দি অরক্ষিত রেলক্রসিংটি রেল বিভাগের নির্ধারিত কোনও লেভেল ক্রসিং নয়। স্থানীয় লোকজন নিজেদের স্বার্থে চলাচলের জন্য সেখানে উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার জন্য মাইক্রোবাস চালকের অস্থিরতাকে দায়ী করে তিনি বলেন, ট্রেন দেখার পরও তাড়াহুড়া করে রেল লাইন পার হওয়ার চেষ্টার কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে।

সারাবাংলা/এসএমএন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন