রবিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

তালা ভেঙে ঢাবি খুলে দিল ছাত্রলীগ

জুলাই ২৩, ২০১৯ | ৬:২৪ অপরাহ্ণ

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাবি: বুধবার (২৪ জুলাই) থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সবধরনের ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ছাত্রলীগ। এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো ভবনে কেউ তালা দিলে বা ক্লাস-পরীক্ষায় বাধা দিলে তা প্রতিহতেরও ঘোষণা দেন তারা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবন ও গেইটে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ঝুলানো তালা ভেঙে ফেলে ছাত্রলীগ।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের অধিভূক্তি বাতিলের দাবিতে তৃতীয় দিনের মত মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনে তালা দিয়ে আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা। এতে কার্যত অচল হয়ে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়। সেই অচলাবস্থা ভেঙে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা সচলের দাবিতে সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। সমাবেশের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবন ও গেইটে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ঝুলানো তালা ভেঙে ফেলে এবং উপাচার্য কার্যালয়ে গিয়ে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য বরারর স্মারকলিপি দেয় তারা।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশের ওই সমাবেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপিত ও সিনেট সদস্য রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ছাত্রলীগ ও ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ কেন্দ্রীয় ও হল শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সমাবেশে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ চলমান রাখার জন্য আমাদের আজকের প্রোগ্রাম। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে সবসময় কাজ করছে। বিশ্বনেত্রী শেখ হাসিনা সাত কলেজকে ঢাবির অন্তর্ভূক্ত করেছেন। কারণ বিশ্বের বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অধীনে অনেক কলেজ থাকে শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্যে। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিপ্রেক্ষিতে তা করা যাচ্ছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাত কলেজ কোনো বিষয় না। আমাদের দাবি শিক্ষার মানোন্নয়ন। আমাদের শিক্ষার মানোন্নয়ন হচ্ছে না। যেহেতু এগুলো আলোচনার মাধ্যমে সামাধান করতে হবে। তাই কাল থেকে আমরা ক্লাস করব।’

সমাবেশে ডাকসুর জিএস ও ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘সমাধান হবে আলোচনার মাধ্যমে। আমরা দেখলাম যে তালা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাগানো হয়েছে। সেই তালা আগের দিন রাতেই ডাকসুর সমাজসোব সম্পাদকের কাছে দেওয়া হয়েছে। সেই তালা ও শিকল নিয়ে ক্যাম্পাসে তালা দিয়েছে ডাকসুর ওই সম্পাদক।

সাত কলেজের অধভূক্তি বাতিলের আন্দোলনে ডাকসুর সমাজ সেবা সম্পাদক আখতার হোসেনের অংশগ্রহণ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে তালা দেওয়াকে শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণ বলে অভিযোগ করেন রাব্বানী। ডাকসুর সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান দেশে ফিরে এলে ছাত্রলীগ আনুষ্ঠানিকভাবে আখতার হোসেনের পদ বাতিলের জন্য আবেদন করবেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে ডাকসুর এজিএস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে একটি দল ব্যক্তিস্বার্থ হাসিল করতে চাচ্ছে। অধিকার আদায়ের নামে ক্লাস-পরীক্ষা দেওয়ার অধিকার হরণের চেষ্টা করা হচ্ছে।’

গত কয়েকদিন ধরে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নামে ক্যাম্পাসে নৈরাজ্য চালু করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন সাদ্দাম। উপস্থিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের আগামীকাল থেকে ক্লাস-পরীক্ষায় ফিরে যাওয়ার আহবান জানান তিনি। ক্লাস-পরীক্ষায় কেউ বাধা দিলে এর দাত ভাঙ্গা জবাব দেওয়ার জন্যও নির্দেশ দেন সাদ্দাম।

সারাবাংলা/কেকে/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন