রবিবার ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৪ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

দুই ম্যাচে পাঁচ বছরের সাফল্য ভেসে যাবে না: মুশফিক

জুলাই ২৯, ২০১৯ | ১২:৩৯ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

ইংল্যান্ডে সমর্থকদের হতাশ করে অষ্টম স্থানে থেকে শেষ হয় টাইগারদের বিশ্বকাপ মিশন। বিশ্বকাপের পর লঙ্কান সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছে বাংলাদেশ। তবে বিশ্বকাপের বাজে পারফরম্যান্স লঙ্কান সিরিজেও লক্ষ্য করা যায়। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ হেরে হাতছাড়া হয়েছে সিরিজ। সাথে সম্ভবনা জেগেছে ধবল ধোলাইয়েরও।

বিজ্ঞাপন

দল হেরেছে ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণে। দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে কেবল জ্বলেছেন মুশফিকুর রহিম। সিরিজে এখন পর্যন্ত দু’টি ম্যাচই হেরেছে বাংলাদেশ। আর এই দুই ম্যাচ হেরেও মুশফিক বলছেন, 'বিশ্বকাপের পর প্রমাণ করতে চেয়েছিলাম যে আমরা সঠিক পথেই আছি। দুই ম্যাচ হেরেছি তাই বলে গেল পাঁচ-সাত বছরে আমাদের অর্জন ভেসে যাবে না।'

             পড়ুন: ব্যাটিং ব্যর্থতায় সিরিজের সলিল সমাধি

টাইগারদের ব্যাটিং ব্যার্থতায় যে এমন ফলাফলের পেছনে দায়ী তা মোটেও অগ্রাহ্য নয়। সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৩১৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দল হারে ৯১ রানে। আর দ্বিতীয় ম্যাচে আগে ব্যাট করে টাইগারদের পুঁজি মাত্র ২৩৮ রান। দুই ম্যাচেই ব্যর্থ দলের টপ অর্ডার। অধিনায়ক তামিম তো দুই ম্যাচেই বোল্ড হয়ে ফিরেছিলেন প্যাভিলিয়নে। আর সৌম্য সরকারও কোনো ঝলক দেখাতে পারেননি। খেলতে পারেননি সাকিবের পরিবর্তে ওয়ান ডাউনে নামা মোহাম্মদ মিঠুনও।

বিজ্ঞাপন

দুই ম্যাচেই দলের হাল ধরেছিলেন মুশফিকুর রহিম। প্রথম ম্যাচে করেন ৬৭ আর দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিং বিপর্যয়ের সময় দলের হাল ধরে ২৩৮ রানের পুঁজি দাঁড় করাতে করেন অপরাজিত ৯৮ রান। মুশফিকও স্বীকার করেছেন দলের ব্যাটিং পারফরম্যান্স খারাপ হচ্ছে অনেক বেশি। তিনি বলেন, ‘তামিম আর রিয়াদ ভাই অনেক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে পারফরম্যান্স করে যাচ্ছে। কিন্তু এখন তারা পারফরম্যান্স করতে না পারায় অন্যদের ওপর বাড়তি চাপ এসে পড়ছে।’

তবে বাজে পারফরম্যান্সের পরও দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের পক্ষেই কথা বললেন মুশি। তিনি বলেন, ‘তামিম আর রিয়াদ ভাই দুইজনই নিজেদের সর্বোচ্চটুকু দিয়েই চেষ্টা করছেন। তারা দুইজনই অতিরিক্ত পরিশ্রম করছে। তবে তারা যত দ্রুত নিজেদের সেরাটা দিতে পারবে, ততই মঙ্গল হবে আমাদের জন্য।’

মাত্র ২ রানের জন্য সেঞ্চুরি হাতছাড়া হয়েছে মুশফিকের। তবে সেঞ্চুরি হাতছাড়া হওয়ায় মোটেও আক্ষেপে পুড়ছেন তিনি মুশি। তিনি বলেন, ‘আমি সেঞ্চুরি নিয়ে মোটেও মাথা ঘামাচ্ছিলাম না। আর সেঞ্চুরি না পাওয়াতেও হতাশ নই আমি। আমি চেষ্টা করছিলাম যেন আমরা ২৫০ রান করতে পারি অন্ততপক্ষে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আর হয়নি।’

বিশ্বকাপের বাজে পারফরম্যান্সের পর সমালোচনার ঝড় বইছে টাইগার ক্রিকেটার এবং ক্রিকেটের ওপর। তবে মুশফিক জানিয়েছেন, ‘বিশ্বকাপের পর নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণের জন্য খেলছি আমরা। সঠিক রাস্তায় ফেরাটা অনেক জরুরি ছিল আমাদের জন্য। কিন্তু আমরা ব্যর্থ হয়েছি। তবে সিরিজের এই দুই ম্যাচে হেরেছি বলে শেষ পাঁচ-সাত বছরের আমাদের অর্জন ভেসে যাবে না।‘

লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচে ১ আগস্ট একই স্টেডিয়ামে খেলতে নামবে বাংলাদেশ। আর ধবল ধোলাইয়ের হাত থেকে বাঁচতে শেষ ম্যাচে জয়ের বিকল্প কিছুই নেই টাইগারদের সামনে। আর শেষ ম্যাচ দিয়ে আবারও ঘুরে দাঁড়াতে প্রস্তুত দল জানিয়েছেন মুশি।

আরও পড়ুন: ক্যান্সারের কাছে হেরে গেলেন টাইগারদের প্রথম অধিনায়ক

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন