বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৪ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ডেঙ্গু সচেতনতায় নির্দেশনা দিলেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

আগস্ট ৫, ২০১৯ | ৭:২২ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: চলতি বছরের ডিসেম্বরে সাউথ এশিয়ান গেমসের (এসএ) আসর বসবে নেপালে। প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছে দেশের কয়েকটি ফেডারেশনের ক্রীড়াবিদরা। এর মাঝেই দেশজুড়ে ঝেঁকে বসেছে ডেঙ্গু আতঙ্ক। ডেঙ্গুর কালো থাবা নিস্তার দেয়নি এসএ গেমসের স্বপ্নে বিভোর অ্যাথলেটদের। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ততোধিক অ্যাথলেট মাঠ ছেড়ে এখন হাসপাতালের বেডে শুয়ে। এমন বড় আসরের সামনে এমন বড় ধাক্কায় নড়েচড়ে বসেছে ফেডারেশনসহ জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ।

বিজ্ঞাপন

আর যাতে কোনও ক্রীড়াবিদ ডেঙ্গুর শিকার না হোন সেজন্য নির্দেশনা দিয়েছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। আজ সোমবার (৫ আগস্ট) এনএসসি কর্তৃক আয়োজিত এক মত বিনিময় সভায় তিনি ডেঙ্গু নিধন ও প্রতিরোধে সকল ফেডারেশনের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন। এনএসসির সচিব জাফর উদ্দীন এ মতবিনিময় সভার সভাপতিত্ব করেন।

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ডেঙ্গু প্রতিরোধে আমরা কী করতে পারি, কী ধরনের ভূমিকা রাখতে পারি ফেডারেশনগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছি। তাদের নিজস্ব ফেডারেশনগুলো যাতে পরিষ্কার রাখে বলেছি। এবং ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় তাদের ভাগ করে দিচ্ছি। খেলোয়াড়দের-সংগঠকদের একযোগে কাজ করার নির্দেশনা দিয়েছি।

এদিকে প্রস্তুতির মধ্যেও ঈদ উপলক্ষে ৮-১০ দিনের লম্বা ছুটি দেয়া হয়েছে খেলোয়াড়দের। তাতে ফিটনেসে বা প্রস্তুতিতে কোনও ব্যাঘাত ঘটবে কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘ঈদ এমন একটা বিষয় মুসলমানদের জন্য এর চেয়ে বড় উৎসব নেই আমাদের। এই উৎসবের কারণে একটু ছুটি লাগতে পারে। যেহেতু তারা দেশে অবস্থান করছে। এ কারণে ঈদের ছুটিটা বেশি করে দিচ্ছি যাতে করে তারা মানসিকভাবে চাঙা হতে পারে। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটালে হয়তো তারা এসে আরও ভালভাবে প্রস্তুতি নিতে পারবে।’

এদিকে খোখো, কাবাডিসহ কিছু ফেডারেশনের ডেঙ্গু আক্রান্ত খেলোয়াড়দের হাসপাতালে রেখেই চিকিৎসা সেবা চালিয়ে যেতে নির্দেশনা দিয়েছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, ‘আর যে খেলোয়াড়গুলো ডেঙ্গুতে আক্রান্ত তারা যাতে বাসায় না যায় সেই নির্দেশনা দিয়েছি। আমরা আশা করছি এ অবস্থাটা কেটে যাবে।’

বিজ্ঞাপন

সঙ্গে তাদের চিকিৎসায় বিশেষ নজর দেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয়, ‘ইতোমধ্যে সরকারিভাবে তাদের ব্যয় খরচ দেয়া হচ্ছে। কিন্তু আমরা যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলেছি খেলোয়াড়দের সুস্থ হতে যা যা প্রয়োজন তাই দেয়ার চেষ্টা করবো। আমরা চাই তারা সুস্থভাবে ফিরে আসুক।’

বাংলাদেশের ক্রীড়া ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের অবদান স্মরণে বিশেষ ‘শেখ কামাল পদক’ চালু করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ. জাহিদ আহসান রাসেল।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শেখ কামাল শুধু খেলাধুলায় পারদর্শীই ছিলেন না, ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও ছিলেন অনন্য একজন। বাংলাদেশের ক্রীড়া ক্ষেত্রের তাঁর অবদান ছিল অসামান্য। তাঁর এই অবদান স্মরণ করতে ‘শেখ কামাল পদক’ চালু করার চিন্তা চলছে। আজকে আমরা বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টে আমরা আবেদন করেছি। এই বছর থেকেই হয়তো আমরা দেশের সেরা ক্রীড়াবিদদের এই পুরস্কার তুলে দিবো।’

সারাবাংলা/জেএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন