বিজ্ঞাপন

ঈদযাত্রার প্রথম দিনেই দেরিতে ছাড়ছে ট্রেন

August 7, 2019 | 10:05 am

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আধঘণ্টা দেরি দিয়ে শুরু হয়েছে ঈদযাত্রার প্রথম ট্রেন ধুমকেতু এক্সপ্রেস। এরপর খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস, চট্টগ্রামগামী মহানগর প্রভাতী এবং চিলাহাটি গামে নীলসাগর এক্সপ্রেস এক থেকে দুই ঘণ্টা বিলম্বে ছেড়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (৭ আগস্ট) কমলাপুর থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে যাবে তিনটি ঈদ স্পেশালসহ মোট ৩৭টি আন্তঃনগর ট্রেন। এই ট্রেনগুলোতে মোট আসন প্রায় ৩০ হাজার।

এদিকে একইদিনে দূরপাল্লার বাসেরও ঈদযাত্রা শুরু হয়েছে। ২৯ জুলাই টিকিট কেনা যাত্রীরা বুধবার ঈদে বাড়ির বিকে যাত্রা শুরু করছেন। বিশেষ করে গাবতলী বাস টার্মিনালে উত্তরবঙ্গ ও বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীদের চাপ রয়েছে। ভোর থেকেই গাবতলী, মহাখালী ও সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার বাস ছাড়তে শুরু করেছে। বাস টার্মিনালে ঘরমুখো মানুষের বাড়ছে ‌।

বিজ্ঞাপন

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার আমিনুল হক জুয়েল সারাবাংলাকে জানান, কাল ও পরশু এই দুদিনের রেলের টিকিটে সর্বোচ্চ চাপ ছিল। এজন্য আগামী দুদিন প্রচণ্ড ভিড় হবে। প্রতিদিন রেলে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ ঢাকা ছাড়বেন বলে জানান তিনি।

ঈদযাত্রার প্রথম দিনেই দেরিতে ছাড়ছে ট্রেন

বিজ্ঞাপন

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে প্রতিদিন ৬৫টি ট্রেন ছেড়ে যাবে। এরমধ্যে ৩৪টি আন্তঃনগর। ২১টি মেইল, কমিউটার, এক্সপ্রেস ও ডেমু। এসব ট্রেনে মোট ৫৯ হাজার ৬৭৭ জন টিকিটধারী যাত্রী চলাচল করবে। তবে এই সংখ্যার চেয়ে ৩-৪ গুণ বেশি যাত্রী ট্রেনে যাবে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) মিয়া জাহান বলেন, ‘৬৫টি ট্রেনে প্রতিদিন প্রায় ৬০ হাজার যাত্রী নিয়ে কমলাপুর স্টেশন থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে পৌঁছবে। এটি অন্য সময়ের চেয়ে প্রায় ৩ গুণ বেশি। ’

বিজ্ঞাপন

এদিকে ঈদযাত্রায় বাস, ট্রেন ও লঞ্চে ডেঙ্গুর লার্ভাবাহী এডিশ মশা যাতে দেশের বিভিন্ন জায়গা যেতে না পারে সেজন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

রেলওয়ের মহাপরিচালক শামসুজ্জামান সারাবাংলাকে জানান, তারা চারটি ফগার মেশিন কিনেছেন। ঢাকা বিমানবন্দর ও তেজগাঁও স্টেশনে এগুলো ব্যবহার করা হবে।

বিজ্ঞাপন

তবে ঈদযাত্রার বিভিন্ন ট্রেন ঘুরে দেখা গেছে, সেখানে প্রচুর ময়লা আবর্জনা রয়েছে এবং ট্রেনে সেই ময়লা-আবর্জনার সঙ্গে মশাও সঙ্গী হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সাধারণ যাত্রীরা।

এদিকে ডেঙ্গুর বিষয়ে আগেভাগেই ব্যবস্থা নিয়েছেন পরিবহন মালিকরা। সায়েদাবাদ মহাখালী ফুলবাড়িয়া টার্মিনালে মশার স্প্রে দিয়ে বাস ছাড়া হচ্ছে। কেনা হয়েছে ফগার মেশিনও।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, ‘বাসযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে তারা সবধরনের ব্যবস্থা নিয়েছেন। বাসগুলো ছাড়ার আগে মশার স্প্রে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ফগার মেশিন দিয়ে বাসস্ট্যান্ডগুলোতে মশা নিধন করা হচ্ছে। ’

সারাবাংলা/এসএ/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন