সোমবার ১৯ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৪ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

‘বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ’ রাজকীয় ক্রিকেটের প্রাণের সঞ্চারণ!

আগস্ট ৯, ২০১৯ | ১২:৪০ অপরাহ্ণ

সাহাবার সাগর, নিউজরুম এডিটর

ওয়ানডে ক্রিকেট আর সর্বশেষ সংস্করণ টি-টোয়েন্টির অন্তর্ভূক্তিতে টেস্ট ক্রিকেট কিছুটা হারিয়েছে তার পুরনো জৌলুস। ক্রিকেটের জন্মটা যার মাধ্যমে, যে ফরম্যাট ক্রিকেটকে এনে দিয়েছে এতটা আভিজাত্য তাকে ভুলে গিয়ে নতুনকে নিয়ে বাঁচবে কি করে ক্রিকেট? টেস্ট ক্রিকেট ছাড়া ক্রিকেট কখনোই বাঁচতে পারে না। ক্রিকেটের আভিজাত্যকে বাঁচিয়ে রাখতে, ক্রিকেটকে তার জৌলুস ধরে রাখতে হলে টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। প্রয়োজন পড়লে অবশ্যই নতুন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। পরিবর্তন আনতে হবে নিয়ম নীতিতে। তারপরেও বাঁচাতে হবে টেস্ট ক্রিকেটকে। আর ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে তাই টেস্টের গুরুত্ব ক্রিকেটের অন্য সব ফরম্যাট থেকে বেশি। আর ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসিও এবার টেস্ট ক্রিকেটের হারানো জৌলুস ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তাই তো আইসিইউতে থাকা টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রাখতে আইসিসির নতুন আয়োজন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। এবার প্রশ্ন উঠতে পারে আসলে কি এই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ? কে খেলবে এই টুর্নামেন্টে? এটা কি ওয়ানডে বিশ্বকাপ কিংবা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো টুর্নামেন্ট আকারে হবে? কতদিন ধরে খেলা হবে? এবং এছাড়াও আরও অনেক প্রশ্ন ঘুরতেই পারে ক্রিকেট প্রেমীদের মাথায়।

ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ: ক্রিকেটের ঐতিহ্য এবং জৌলুসের চিহ্ন বহনকারী টেস্টকে বাঁচিয়ে রাখতেই আয়োজন করা হচ্ছে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। এতদিন ধরে টেস্ট ক্রিকেট ছিল কেবল দুই দলের মধ্যকার সিরিজ আর কেবল র‍্যাংকিংয়ের ওঠা নামার। তবে এখন থেকে বদলে যাচ্ছে এই পদ্ধতি। দুই বছর ধরে চলবে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। আর তাই তো দুই দলের মধ্যকার ২০১৯ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত দুই বছর ধরে অনুষ্ঠিত হবে চ্যাম্পিয়নশিপ। আর তাই তো দ্বিপক্ষীয় সিরিজ এখন শুধুই আইসিসির র‍্যাংকিংয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে না। এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে নির্ধারিত হবে দুই বছর সময়কালে টেস্টের চ্যাম্পিয়নও। প্রতি ম্যাচেই পয়েন্ট থাকবে বলে ‘ডেড রাবার’ বলেও কিছু থাকবে না এখন আর।

অংশ্রগহণ করবে যারা: বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের এবারের আসরে অংশগ্রহণ করবে আইসিসির টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের প্রথম ৯টি দল। অস্ট্রেলিয়া, বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড, ভারত, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তবে ২০১৭ সালে টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়া আফগানিস্তান আর আয়ারল্যান্ড থাকছে না প্রথম বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে। আর সম্প্রতি আইসিসি কর্তৃক নিষিদ্ধ হওয়া জিম্বাবুয়েরও জায়গা মিলছে না প্রথম আসরে।

বিজ্ঞাপন

যেভাবে নির্ধারিত হবে চ্যাম্পিয়ন: দুই বছরের প্রতিটি দল খেলবে ছয়টি করে সিরিজ তিনটি দেশের মাটিতে, তিনটি প্রতিপক্ষের মাটিতে। অবশ্য টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের বাইরেও এ সময়ে সিরিজ থাকতে পারে, যেমন নভেম্বরে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড সিরিজটি এফটিপি নির্ধারিত হলেও সেটি চ্যাম্পিয়নশিপের বাইরে। প্রতি সিরিজে কমপক্ষে ২ ম্যাচ থাকবে, আর সর্বোচ্চ ৫টি।

যেমন হবে পয়েন্ট ভাগাভাগি: প্রতি সিরিজে নির্ধারিত থাকবে ১২০ পয়েন্ট। সিরিজে ম্যাচ থাকতে পারে সর্বনিম্ন ২টি থেকে সর্বোচ্চ ৫টি। ম্যাচ সংখ্যা অনুযায়ী সমান ভাবে ভাগ করা হবে পয়েন্ট। যেমন, ৫ ম্যাচের সিরিজে প্রতিটি জয়ের জন্য এক দল পাবে ২৪ পয়েন্ট করে, আবার ২ ম্যাচের সিরিজে প্রতিটি জয় আনবে ৬০ পয়েন্ট করে। ড্র’য়ের জন্য একটি জয়ের এক তৃতীয়াংশ পয়েন্ট পাবে এক দল। ফলে, ৫ ম্যাচের সিরিজের প্রতিটি ড্রয়ের বিপরীতে ৮ পয়েন্ট, ২ ম্যাচের সিরিজে প্রতিটি ড্র’য়ের জন্য ২০ পয়েন্ট। আর স্লো ওভার রেটের জন্য ২ পয়েন্ট কাটা যাবে। ২৭টি সিরিজ আর ৭২টি টেস্ট শেষে জানা যাবে সেরাদের সেরাকে। নতুন পয়েন্ট পদ্ধতি সব সিরিজের আকর্ষণ ধরে রাখবে সমানভাবে।

বিজয়ী যেভাবে নির্ধারিত হবে: ১ আগস্ট ২০১৯ থেকে শুরু হওয়া অ্যাশেজের প্রথম টেস্ট দিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। ২০২১ সালের জুলাইয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষ দুই দল নিয়ে হবে ফাইনাল। বিশ্বকাপ ফাইনালটি ম্যাচ টাই’র ব্যাপারে ধারণা বদলে দিয়েছে সবার। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল টাই বা ড্র হলে লিগে যে দল শীর্ষে ছিল, চ্যাম্পিয়ন হবে তারাই।

তবে ফাইনালের জন্য এক দিন রাখা হবে রিজার্ভ ডে। রিজার্ভ-ডে’তে কোনো ম্যাচ গড়াবে তখনই যখন নির্ধারিত পাঁচ দিনে যদি নির্দিষ্ট সময় খেলা না হয়। যেমন, সাধারণত পাঁচ দিনের এক টেস্টের জন্য ছয় ঘন্টা করে ৩০ ঘন্টা বরাদ্দ থাকে খেলার জন্য। বৃষ্টি বা অন্য কোনো কারণে কোনো দিন পুরোটা বা আংশিক ভেস্তে গেলে, সে সময় অন্য দিনগুলিতে পুষিয়ে দেওয়া হয়। এরপরও নির্ধারিত সময়ের খেলা নির্ধারিত দিনের মাঝে সম্পন্ন হতে না পারলে রিজার্ভ ডে-তে যাবে ফাইনাল।

বাংলাদেশের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ: দুই বছরের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সাইকেলে মোট ১৪টি টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ, যা নিউজিল্যান্ডের সমান। সর্বোচ্চ ২২টি টেস্ট খেলবে ইংল্যান্ড, ১৮টি করে খেলবে অস্ট্রেলিয়া ও ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও উইন্ডিজ খেলবে ১৫টি করে, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা খেলবে সর্বনিম্ন ১৩টি করে টেস্ট।

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের সিরিজসমূহ:

ভারত (অ্যাওয়ে) – ২ ম্যাচ
পাকিস্তান (অ্যাওয়ে) – ২ ম্যাচ
অস্ট্রেলিয়া (হোম) – ২ ম্যাচ
শ্রীলঙ্কা (অ্যাওয়ে) – ৩ ম্যাচ
নিউজিল্যান্ড (হোম) – ২ ম্যাচ
ওয়েস্ট ইন্ডিজ (হোম) – ৩ ম্যাচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন