শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৮ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২১ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

কাশ্মির ইস্যুতে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা হলে কঠোর ব্যবস্থা: র‌্যাব ডিজি

আগস্ট ৯, ২০১৯ | ৩:১৫ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: কাশ্মির ইস্যু ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় জানিয়ে র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজির আহমেদ বলেছেন, ‘এই ইস্যু নিয়ে যদি কেউ দেশে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করে তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শুক্রবার (৯ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আসন্ন ঈদুল আজহার নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

র‌্যাব ডিজি বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘ভারতের নিজস্ব বিষয়ে আমাদের কোনো মন্তব্য নেই। তবে দেশে আল্ট্রা ইসলামিস্টের সংখ্যা বেশি নয়। যারা রয়েছে তারাও ২৪ ঘণ্টা নজরদারিতে রয়েছে। আশা করবো ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় কিংবা কাশ্মির নিয়ে দেশের কেউ পানি ঘোলা করার চেষ্টা করবেন না। এরপরও যদি কেউ সে চেষ্টা করে তবে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

‘কাশ্মির দেশের সমস্যা নয়, বিষয়ও নয়। সেটি নিয়ে দেশে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে, অযাচিতভাবে কেউ ঝামেলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে’, আবারও বলেন র‌্যাব প্রধান।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি র‌্যাব-৭ এর সাবেক অধিনায়ক (সিও) হাসিনুর রহমানকে ডিবি পরিচয়ে পল্লবীর বাসা থেকে তুলে নেওয়ার পর তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। তাকে খুঁজে বের করতে না পারাটা বাহিনীর ব্যর্থতা কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘অনেক মানুষকেই তো খুঁজে পাওয়া যায় না। খুঁজে না পাওয়াটা শুধু বাংলাদেশে নয়, যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, ইউরোপের ক্ষেত্রেও ঘটে। একজনকে খুঁজে না পাওয়াটা কোনো বাহিনীর ব্যর্থতা নয়। আমাদের পক্ষ থেকে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। আমরা জ্ঞাত আছি, এ বিষয়ে কাজ করছি। যদি কারো কাছে কোনো তথ্য থাকে তাহলে জানালে আমরা ব্যবস্থা নিবো।’

ঈদ যাত্রায় অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ভোগ এড়ানোর বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কেউ অতিরিক্ত যাত্রী হয়ে পরিবহনে উঠবেন না। প্রয়োজনে যাত্রা কিছুটা বিলম্ব হবে, তবু ঝুঁকি নেবেন না। সারাবছরই গ্রামে যাওয়ার সুযোগ আছে। সে বিষয়টি মাথায় রাখবেন।’ সেই সঙ্গে লঞ্চ, ট্রেন এবং বাসের সংশ্লিষ্ট পরিচালনাকারীরাও অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে যেন পরিবহন চলতে না পারে সে বিষয়টিতে নজর রাখার অনুরোধ জানান তিনি।

ঈদ ও ১৫ আগস্ট কেন্দ্রিক নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ ঈদের সব চেয়ে বড় নিরাপত্তা প্রয়োজন গরুর হাটে। যা আমরা ইতোমধ্যে সারা দেশের প্রায় ১৮ হাজার হাটে নিশ্চিত করেছি। গুরুত্বপূর্ণ ৫০০টি হাটে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। ঈদের নামাজকে ঘিরে রাজধানীসহ সারাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ঈদগাহে নিরাপত্তা হিসেবে রাষ্ট্রীয় পোষাকের পাশাপাশি সাদা পোষাকে নজরদারি করা হবে। সেই সঙ্গে ডগস্কোয়ার্ডসহ বিভিন্ন টিম মাঠে থাকবে।’

ঈদ যাত্রা যাতে নির্বিঘ্ন হয় সে বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সারা দেশের ৪২টি স্থান দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকা। এগুলো আমরা চিহ্নিত করে দুর্ঘটনারোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছি।’ সেই সঙ্গে আরিচা মহাসড়ক, সাভার, পাটুরিয়াসহ যেসব স্থানে ব্যাপক যানজট হয় সেসব স্থানে অন্যান্য বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যরাও কাজ করছেন বলেও জানান তিনি।

সারাবাংলা/এসএইচ/এমও

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন