বিজ্ঞাপন

ধোয়ামোছা চলছে একাধিক ভিআইপি কারা সেলে!

February 7, 2018 | 3:39 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

বিজ্ঞাপন

ঢাকা: একদিন বাদেই আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুনীর্তি মামলার রায়। এরইমধ্যে  এই রায়কে ঘিরে নাশকতা ঠেকাতে মাঠে তৎপর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী । ৮ ফেব্রুয়ারিকে ঘিরে আতঙ্ক, উদ্বেগ ও উত্তেজনা রয়েছে রাজধানীসহ সারাদেশের মানুষের মধ্যে।

কি হবে রায়? রায়ে কি দণ্ড পাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন? সাজা হলে কোথায় থাকবেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী? এমন নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে মানুষের মনে।

বিজ্ঞাপন

সকলেরই প্রশ্ন এই রায় ঘিরেই কি ফিরে আসতে যাচ্ছে সংঘাতের রাজনীতি। আবার কী শুরু হবে জ্বালাও-পোড়াও?

সোমবার ( ৭ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এমন কিছু প্রশ্নের জবাব দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

বিজ্ঞাপন

দণ্ড হলে কোথায় রাখা হবে তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে? এমন প্রশ্নের জবাবে  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তেমন কিছু হলে জেলকোড অনুয়ায়ীই খালেদা জিয়াকে রাখা হবে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন জানান, কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়ার সাজা হলে তিনি প্রথম শ্রেণির (ডিভিশন) কয়েদি হিসেবে কারাগারের সর্বোচ্চ সুবিধা পাবেন। তার জীবন যাপনের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ সবকিছুই তিনি সেখানে পাবেন।

বিজ্ঞাপন

মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট এলিনা খান জানান, এক্ষেত্রে সাজা হলে ভিআইপি মর্যাদায় তাকে সাবজেলে রাখারও  ঘোষণা দিতে পারে সরকার। যেমনটা করা হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়।

এদিকে, রাজধানীর পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের দোতলার একটি কক্ষ ও গাজীপুরের কাশিমপুম  কারাগারের ভিআইপি সেলে পরিষ্কার- পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে।

বিজ্ঞাপন

পুরনো কারাগারের দোতলায় নারী ও শিশু সেলটির যেখানটাতে চাইল্ড কেয়ার সেন্টার রয়েছে সেখানেই ধোয়া মোছা চলছে বলে নিশ্চিত করেছে সূত্র।

কাশিমপুর কারাগার থেকে সেখানে ভিআইপি সেলটি প্রস্তুত করা হচ্ছে বলেও জানাচ্ছে অপর দায়িত্বশীল সূত্র।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কারা কর্মকর্তা সারাবাংলাকে জানান, ছয় মাস আগে কাশিমপুর কারাগারে তৈরি হওয়া ওই ভিআইপি সেলে খাটসহ প্রয়োজনীয় ফার্নিচার রাখা হয়েছে। গত রোববার এই রুমে এসিও লাগানো হয়েছে।

এর আগে ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রথম কারাগারে যান খালেদা জিয়া। সংসদ ভবনে স্থাপিত বিশেষ আদালতে সে সময় এক বছর কারাবন্দী ছিলেন তিনি।

সারাবাংলা/জেডএফ

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন