শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৮ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২১ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বগুড়ায় গরুর চামড়া ১০০ টাকা, খাসি ১০ টাকা

আগস্ট ১৪, ২০১৯ | ২:৩৫ অপরাহ্ণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

বগুড়া: বগুড়ায় সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন দামে বেচাকেনা হয়েছে কোরবানির পশুর চামড়া। আড়তে চামড়া বিক্রি করতে এসে দাম শুনে হতবাক ও বিস্মিত হয়ে গেছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। সরকার নির্ধারিত মূল্যের চার ভাগের এক ভাগ দাম দিতে চাইছেন আড়তদাররা। হাতেগোনা কিছু বড় গরুর চামড়া ৫০০ টাকায় বিক্রি হলেও বেশিরভাগ চামড়াই বিক্রি হচ্ছে মাত্র ১০০ টাকায়। আর খাসির চামড়া বিক্রি হচ্ছে মাত্র ১০ থেকে ২০ টাকায়। এমন চিত্রই দেখা গেছে বগুড়ার বাদুরতলা-চকসূত্রাপুর চামড়ার পাইকারি বাজারে। চামড়া বিক্রি করতে এসে ব্যাপক লোকসানে পড়েছেন মৌসুমি ব্যবসায়ী ও ফরিয়ারা।

বাজারে এই বছর গত কয়েক বছরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক চামড়া আমদানি হয়েছে বলে জানিয়েছেন বগুড়ার পাইকারি চামড়া বাজারের আড়তদাররা।

বগুড়ার শাজাহানপুরের জালশুকা এলাকা থেকে বগুড়ার পাইকারি বাজারে চামড়া বিক্রি করতে আসা মৌসুমি ব্যবসায়ী রায়হান সারাবাংলাকে বলেন, ‘মহল্লা থেকে ৪৩টি গরুর চামড়া ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা করে কিনেছি আমি। কিন্তু এখানে এসে সেটি বিক্রি করতে পেরেছি ৩৫০ টাকা দরে। আর ১৯৩টি খাসির চামড়া ২০ থেকে ২৫ টাকা দরে কিনে বিক্রি করতে হয়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকায়।’

চামড়ার এই অস্বাভাবিক দরপতনের জন্য আড়তদারদের ‘সিন্ডিকেট’কে দায়ি করেছেন মৌসুমি ব্যবসায়ী ও ফরিয়ারা। মৌসুমি ব্যবসায়ীদের বলছেন, এবারে গরুর চামড়া কেনার নির্ধারিত রেট ছিল প্রতি বর্গফুট ৪০ টাকা। সে হিসেবে একটি মাঝারি আকারের গরুর চামড়ার দাম হওয়া উচিৎ অন্তত ১ হাজার টাকা। কিন্তু এখানে এসে চামড়া বিক্রি করতে হচ্ছে ১০০ থেকে ৫০০ টাকায়।

বিজ্ঞাপন

তবে বগুড়ার পাইকারি বাজারের চামড়ার আড়তদারদের দাবি, গরুর চামড়া কেনার নির্ধারিত রেট প্রতি বর্গফুট ৪০ টাকা শুধুমাত্র লবণযুক্ত চামড়ার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কাঁচা চামড়া ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে এই মূল্য প্রযোজ্য হবে না। তাছাড়া ঢাকার ট্যানারি মালিকরা আগের বছরের পাওনা টাকা পরিশোধ না করায় বেশি দামে ও পরিমাণে চামড়া কেনাও সম্ভব হচ্ছে না বলে জানালেন আড়তদারেরা।

সারাবাংলা/ওএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন