শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ৮ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২১ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

সেকেন্ড ডিভিশনের কলকাতা মোহামেডান আছে, লিগে খেলা মোহামেডান নেই!

আগস্ট ১৪, ২০১৯ | ৮:১৪ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ শুরু হচ্ছে সম্ভাব্য অক্টোবর থেকে। মোটামুটি আটটা দল চূড়ান্ত করা হয়ে গেছে। ভারত থেকে তিনটি। বাংলাদেশ থেকে আয়োজক চট্টগ্রাম আবাহনীসহ তিনটি। মালদ্বীপ থেকে একটি। আর থাইল্যান্ড থেকে একটি। তবে, বাংলাদেশ থেকে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে আমন্ত্রণ না দেয়ায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে দেশের ফুটবল পাড়ায়।

আট দলকে নিয়ে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের তৃতীয় আসর শুরু হবে অক্টোবরে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে। ইতোমধ্যে মাঠের সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। তবে আমন্ত্রণ পাওয়া দলগুলো নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছে ফুটবল প্রেমীরা।

চূড়ান্ত হওয়া আটটি দলে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ও রানার্স আপ ঢাকা আবাহনী আছে। আয়োজক হিসেবে চট্টগ্রাম আবাহনী তো থাকছেই। তাছাড়া ভারতের কলকাতা নির্ভর তিন ক্লাব- মোহনবাগান, ইস্ট বেঙ্গল ও কলকাতা মোহামেডানকে চূড়ান্ত করা হয়েছে। এদিকে থাইল্যান্ডের ব্যাংকক এফসি ও মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসকে চূড়ান্ত আটের তালিকায় রাখা হয়েছে।

এখানেই প্রশ্নটা জেগেছে দেশের সমর্থকদের। কলকাতা মোহামেডান ছাড়া বাকী সবগুলো দলই তাদের প্রিমিয়ার লিগে খেলছে। সেখানে এমন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে দেশের ঐতিহ্যবাহী ক্লাব আমন্ত্রণই পায়নি!

বিজ্ঞাপন

মোহামেডানকে এই টুর্নামেন্টে আমন্ত্রণ না জানানো প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম আবাহনীর ফুটবল ম্যানেজার এবং শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের কো-অর্ডিনেটর শাকিল মাহমুদ চৌধুরী এক অনলাইন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ঢাকা মোহামেডান ফুটবল দল এত বড় টুর্নামেন্টে খেলার মতো আপ টু দ্য মার্ক নয়। যে মানের ফুটবল দল এই টুর্নামেন্টে এবার খেলবে, ঢাকা মোহামেডান ফুটবল দল সেই মানের নয়। এই টুর্নামেন্টে খেলার মতো দল না বলেই মোহামেডানকে আমরা বিবেচনায় রাখিনি।’

দেশের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবকে আমন্ত্রণ না জানানোকে দুঃখজনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিডেটের ডাইরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভুঁইয়া, ‘বাংলাদেশের দুটি দল মোহামেডান ও আবাহনী ঐতিহ্যবাহী। শেখ কামালের নামের এত বড় টুর্নামেন্টে এই দুই দলের খেলা উচিত। আমরা এই টুর্নামেন্টে খেলতে চাই। আমন্ত্রণ জানালে অবশ্যই মোহামেডান খেলবে। কারণ, মোহামেডান সমর্থকপুষ্ট দল। আমরা প্রথম আসরে খেলেছিলাম। আমি মনে করি, মোহামেডান ও আবাহনীর মতো দুটি দল থাকলে টুর্নামেন্টে দর্শক বাড়বে, আকর্ষণও বাড়বে। তবে এবার টুর্নামেন্ট নিয়ে আয়োজকরা আমাদের সঙ্গে কোনো আলোচনা করেনি। বাংলাদেশে এতবড় একটা টুর্নামেন্ট হচ্ছে অথচ মোহামেডানকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এটা দুঃখজনক।’

দুঃখজনক হিসেবে দেখছে দেশের ফুটবল সমর্থকরাও। তাদের দাবি- সেকেন্ড ডিভিশনে খেলা কলকাতা মোহামেডানের থেকে অনেকগুণ এগিয়ে আছে বাংলাদেশের মোহামেডান। এবং অক্টোবরে ভারতসহ মালদ্বীপ ও থাইল্যান্ডে লিগ চলাকালীন প্রথম দলের অংশ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছে সমর্থকরা।

সারাবাংলা/জেএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন