বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

কট্টরপন্থীদের রাজনৈতিক প্রচারণা নিষিদ্ধ করলো ফেসবুক

আগস্ট ২৪, ২০১৯ | ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক

সামাজিক যোগাযোগের প্লাটফর্ম ফেসবুক কট্টরপন্থীদের রাজনৈতিক প্রচারণা নিষিদ্ধ করেছে। রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনে স্বচ্ছতা সংক্রান্ত নিয়ম না মানায়  ট্রাম্পের নির্বাচনী মুখপত্র ইপক টাইমস ভবিষ্যতে ফেসবুকে আর কোন ধরনের বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারবে না। খবর স্পুটনিক নিউজের।

বিজ্ঞাপন

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র স্পুটনিক নিউজকে জানিয়েছেন, অতীতেও আমরা বিজ্ঞাপন নীতিমালা না মানার কারণে ইপক টাইমসের সাথে সংশ্লিষ্ট অনেক একাউন্ট বাতিল করে দিয়েছি। এবার ইপক টাইমস আমাদের প্লাটফর্মে বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষমতা হারালো।

এর আগে, এনবিসি নিউজের এক প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচারণা এবং তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের ব্যাপারে ষড়যন্ত্র তত্ত্ব প্রচারের জন্য ইপক টাইমস দুই মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করেছে।

এছাড়াও মে মাসে যাড লেগাম নামের একজন সাংবাদিক তার নিউজলেটারে ফেসবুকের পলিসি না মেনেই কতগুলো বিজ্ঞাপন ফেসবুকে প্রকাশ করা হয়েছে তার একটি তালিকা দিয়েছিলেন। এই তালিকাতেও ইপক টাইমসের নাম এসেছিল। এই সংবাদ সংস্থা ট্রাম্পের প্রচারণায় ১১০০ ফেসবুক বিজ্ঞাপণ প্রচার করার জন্য দেড় মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করেছে বলে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু বিজ্ঞাপনের কোথাও ‘পেইড’ লেবেল দেখা যায়নি। ইপক টাইমস নিজেই একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ফেসবুকে নিবন্ধিত। এর একাউন্ট থেকে এর সাথে সংশ্লিষ্ট সংস্থা এবং দাতাগোষ্ঠির ব্যাপারে ধারণ পাওয়া গেলেও, ফেসবুকের নিয়মানুসারে কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানের ক্যাটেগরিতে ইপক টাইমস পড়ে তা উল্লেখ করা হয়নি।

যাড লেগামের এই অভিযগের পর থেকেই ইপক টাইমসের অফিসিয়াল পেজ থেকে আর কোন রাজনৈতিক বিজ্ঞাপণ প্রচার করা হয় না। এখন তারা অনেস্ট পেপার, প্যাট্রিয়টস ওব আমেরিকা, পিওর আমেরিকান জার্নালিজম এবং বেস্ট নিউজের নামে ভাগ হয়ে ইপক টাইমসের রাজনৈতিক আর্টিকেলগুলোর প্রচারণা চালায়। কিন্তু জানতে দেয় না এই একাউন্টগুলোর পিছনেও ইপক টাইমসই কাজ করছে। সম্প্রতি আবার ফেসবুকের নিয়ম বহির্ভূত প্রচারণা চালানোর দায়ে সংবাদ সংস্থাটিকে নিষিদ্ধ করেছে ফেসবুক।

বিজ্ঞাপন

তবে ইপক টাইমসের প্রকাশক স্টিফেন গ্রেগরি বলেছেন, ইপক টাইমসের বিজ্ঞাপন গুলোর কোন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য না থাকলেও, কিছু বিজ্ঞাপনকে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনের ক্যাটেগরিতে ফেলা হয়েছে। যে কারণে ফেসবুক এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ব্রেন্ডন স্টেইনহসার নামে একজন রিপাবলিকান বুদ্ধিজীবী এবং ইপক টাইমসের উপদেষ্টা এনবিসি নিউজকে জানিয়েছেন, বেনামে পেজ বা একাউন্ট খুলে প্রচারণার মাধ্যমে টার্গেট পেজে জনসমাগম এবং দাতা বাড়ানো এখন গণসংযোগ এবং রাজনৈতিক প্রচারণার একটি সাধারণ প্রক্রিয়া। ইপক টাইমসের ব্যাপারে তাহলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কারণ কি?

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন