সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ এখন শান্তির মডেল: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আগস্ট ২৬, ২০১৯ | ১:৩১ পূর্বাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশ এখন শান্তির মডেলে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশের মানুষ কোনো দিন জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয় নি, এখন দেয় না এবং ভবিষ্যতেও দিবে না। জঙ্গিবাদের কোনো আশ্রয় প্রশ্রয় না থাকায় দেশ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে এবং এসব কারণে বাংলাদেশ এখন শান্তির মডেলে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

রোববার (২৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় দোহারের নবাবগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নবাবগঞ্জ থানা কমিউনিটি পুলিশিং কর্তৃক আয়োজিত 'সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক বিরোধী’ এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষ কোনো দিন জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয় নি। কখনো দিবেও না। কারণ আপনারা দেখেছেন দেশের বিভিন্ন স্থানে যখন জঙ্গিরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চেয়েছে তখনই আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের দমন করতে সক্ষম হয়েছে। আর সেইসব জঙ্গিদের লাশটা পর্যন্তও তাদের স্বজনরা গ্রহণ করেনি। এতেই স্পষ্ট এদেশের মানুষ জঙ্গিবাদকে সমর্থন করেনা, প্রশ্রয় দেয়না।

তিনি বলেন, আমি কিছুদিন আগে ভারত সফরে গিয়েছিলাম। সেখানকার প্রধানমন্ত্রী মোদী সাহেব বললেন, 'আপনার প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানায় এজন্য যে বাংলাদেশ একটি মডেল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। যেখানে তোমরা সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমন করেছ, যেখানে তোমরা অসম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস কর, যেদেশে হিন্দু-মুসলমান, বৌদ্ধ-খ্রিস্টানদের নিয়ে একটা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়েছো, সে জন্য তোমাদেরকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এতে প্রমাণিত বাংলাদেশ বিশ্বে মডেল হিসেবে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ এখন শান্তিতে মডেলে পরিণত হয়েছে।'

এসময় প্রধানমন্ত্রীর শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা এবং ঢাকা-১ আসনের এমপি সালমান এফ রহমান বলেন, 'নির্বাচনের আগে আমি নবাবগঞ্জে যে অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম তা পাশ হয়েছে। প্রথমে আমরা একটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের কথা বলেছিলাম। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব দেওয়ার পর তিনি দুটি অঞ্চল নির্মাণের নির্দেশ দেন। যার ফলশ্রুতিতে এই অঞ্চল নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। আমি যেসব কর্মকাণ্ডের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম তার সবগুলোর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বাকিগুলোও দ্রুত শুরু হবে।'

বিজ্ঞাপন

সালমান এফ রহমান বলেন, 'আমি ইতিমধ্যে নবাবগঞ্জের রাস্তাগুলো ঠিক করার জন্য এক হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ নিয়েছি। আমাদের উপজেলায় দুটি নদী রয়েছে, তা খনন ও গতিপথ ধরে রাখার জন্য ৫০০ কোটি টাকার বরাদ্দ নিয়েছি। আমি নবাবগঞ্জকে মডেল উপজেলা হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপহার দিতে চাই। তবে এই মডেল উপজেলার জন্য আপনাদের সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গির বিরুদ্ধে শপথ নিতে হবে।'

অনুষ্ঠানে পুলিশ মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, 'আমরা প্রতিনিয়ত মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলছি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মাদক ও জঙ্গির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নিয়ে আমাদের কার্যক্রম চলছে ও তাদের নির্মূল করতে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন।'

মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, 'আপনারা যদি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে না আসেন তবে তার পরিণতি হবে কঠিন। আপনাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আইনি সহায়তার জন্য জনগণ থানায় গেলে পুলিশ যেন হয়রানি না করে সে নির্দেশ দিয়ে তিনি আরও বলেন, আপনারা যেকোনো বিপদ ও দুর্ঘটনায় ৯৯৯ কল দিবেন। পুলিশ অপরাধ করলেও আমাদের জানাবেন।'

সমাবেশে নবাবগঞ্জ ও দোহার এলাকার ১০০ জন মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারী স্বাভাবিক জীবনে প্রত্যাবর্তন করেন। এর আগে গত বছরের ২৫ জুলাই ২৫ জন মাদক ব্যবসায়ী স্বাভাবিক জীবনে ফেরার অঙ্গিকার করেছিলেন। এর মধ্যে ১৫ জন ১৩ জন পুরুষ ও ২ জন নারী তাদের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন। অনুষ্ঠানে তাদের ভ্যান ও সেলাই মেশিন উপহার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান, জেলা প্রশাসক আবু সালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান, ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহাবুবুর রহমান ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা। এর আগে, বিকেলে স্বরাষ্টমন্ত্রী নবাবগঞ্জ (ঢাকা) থানার নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন এবং দোহার সার্কেল অফিস নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন।

সারাবাংলা/এসএইচ/ইএইচটি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন