বিজ্ঞাপন

সরকার স্টিলের ৬ কোটি ৪২ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকি

August 27, 2019 | 2:04 pm

শেখ জাহিদুজ্জামান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সরকার স্টিল লিমিটেড ৬ কোটি ৪২ লাখ ৪১ হাজার ২০ টাকার ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেটের এক নিরীক্ষা প্রতিবেদনে এই ফাঁকির তথ্য উদঘাটিত হয়েছে। আর এই ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে সম্প্রতি চূড়ান্ত দাবিনামা জারি করেছে ভ্যাট কমিশনারেট। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

এনবিআর সূত্রে জানা যায়, ঢাকার ধামরাইয়ের বালিথায় সরকার স্টিল অবস্থিত। এটি ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেটের অন্তর্ভুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি ২০১২ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে পণ্য বিক্রি বা সরবরাহ পর্যায়ে ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে ৪ কোটি ৫৮ লাখ ১৩ হাজার ৮৭২ টাকা। আর ওই সময়ে সরকার স্টিল উৎসে মূল্য সংযোজন কর আদায় বা কর্তন করে সরকারি কোষাগারে জমা দেয়নি ১ কোটি ৮৪ লাখ ২৭ হাজার ১৪৮ টাকা। সব মিলিয়ে প্রতিষ্ঠানটির ৬ কোটি ৪২ লাখ ৪১ হাজার ২০ টাকার ভ্যাট ফাঁকি রয়েছে।

এনবিআর সূত্রে আরও জানা যায়, সরকার স্টিল পণ্য বিক্রি বা সরবরাহে ২০১২ সালে ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে ১০ লাখ ২৮ হাজার ৩৬৫ টাকা, ২০১৩ সালে ৭ লাখ ২৯ হাজার ৮৮৪ টাকা, ২০১৪ সালে ১ কোটি ১৭ লাখ ৬৭ হাজার ১৬৮ টাকা, ২০১৫ সালে ১ কোটি ২৮ লাখ ২৮ হাজার ৫৯৫ টাকা ও ২০১৬ সালে ১ কোটি ৯৪ লাখ ৫৯ হাজার ৮৬০ টাকা। অপরদিকে প্রতিষ্ঠানটি ২০১২ সালে উৎসে মূল্য সংযোজন কর আদায় বা কর্তন করে সরকারি কোষাগারে জমা দেয়নি ৭২ লাখ ৫৭ হাজার ৪০০ টাকা, ২০১৩ সালে ২৮ লাখ ৮০ হাজার ৮০৫ টাকা, ২০১৪ সালে ৪০ লাখ ২৭ হাজার ৩৩৪ টাকা, ২০১৫ সালে ৭ লাখ ৮১ হাজার ১৮৪ টাকা ও ২০১৫ সালে ৩৪ লাখ ৮০ হাজার ৪২৫ টাকা।

বিজ্ঞাপন

আর এই ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ায় সম্প্রতি ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেট মূল্য সংযোজন কর আইন ১৯৯১ এর ধারা ৫৫ (৩) অনুয়ায়ী চূড়ান্ত দাবিনামা জারি করেছে। একই সঙ্গে মাসিক ২ শতাংশ হারে সুদ প্রযোজ্য বলেও ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেট প্রতিষ্ঠানটিকে জানিয়ে দিয়েছে।

এদিকে সরকার স্টিলের ভ্যাট ফাঁকির বিষয়ে জানতে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের কোনো কর্মকর্তা কথা বলতে রাজি হননি।

এ বিষয়ে ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার ড. মইনুল খান সারাবাংলাকে বলেন, ‘সরকার স্টিল যে ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে সেটা সরকারের টাকা। যদি প্রতিষ্ঠানটি ওই টাকা না দেয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। প্রতিষ্ঠানটির সব বক্তব্য ও তথ্যাদি আমলে নিয়ে চূড়ান্ত দাবিনামা জারি করা হয়েছে। সেখানে সরকার স্টিলকে ফাঁকিকৃত রাজস্ব সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। আমরা আশা করছি, প্রতিষ্ঠানটি ফাঁকিকৃত রাজস্ব সরকারি কোষাগারে জমা দেবে। আর জমা না দিলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সারাবাংলা/এসজে/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন