বিজ্ঞাপন

এই প্রথম আদালতে প্রজেক্টরে দেখানো হলো আসামিদের সম্পৃক্ততা

August 27, 2019 | 8:39 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

ফেনী: ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আসামিদের সম্পৃক্ততার অডিও ও নুসরাতের জবানবন্দির ভিডিও পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের  মতো বিচারকাজে এই ধরনের সাক্ষ্য উপস্থাপন করা হলো।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশীদের আদালতে এই পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. শাহ আলম।

এই মামলার কার্যক্রমের ৩৮তম দিনে মঙ্গলবার সর্বশেষ ৯২ নম্বর সাক্ষী ও তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের ফেনী শাখার পরিদর্শক মো. শাহ আলম চতুর্থ দিনের মতো সাক্ষ্য দেন। এর আগে গত ২১, ২৫ ও ২৬ আগস্ট তিনি সাক্ষ্য দিয়েছেন। মঙ্গলবার বাকি সাক্ষ্য উপস্থাপন শেষে নুসরাত হত্যা মামলার আসামিদের সম্পৃক্ততার অডিও ও নুসরাত দেয়া জবানবন্দির ভিডিও পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে আদালতে বিচারকের সামনে প্রদর্শন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. শাহ আলম। ভিডিও প্রদর্শন শেষ আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তাকে জেরা করেন। পরে আদালতের সময় শেষ হয়ে যাওয়ার বিচারক বুধবার (২৮ আগস্ট) নতুন তারিখ নির্ধারণ করেন।

বিজ্ঞাপন

মামলার বাদিপক্ষের আইনজীবী শাহজাহান সাজু জানান, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহ আলমের জবানবন্দী শেষে নুসরাত হত্যার আগে-পরে আসামিরা হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়ে যে উল্লাস করেছে এবং তাদের কথোপকথন ও নুসরাতের জবানবন্দিও ভিডিও ডিজিটাল পদ্ধতিতে পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে বিচারককে দেখানো হয়েছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি প্রথম মামলা; যেখানে কোনো হত্যাকাণ্ডের ঘটনার রহস্য উন্মোচনের জন্য ভিডিও প্রজেক্টরের মাধ্যমে তা প্রদর্শন করা হলো।

তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহম্মদ অভিযোগ করে বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ আইনের বিধান অমান্য করে ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করে ভিডিও প্রদর্শন করেছে।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে হত্যার রহস্য উদঘাটনে আদালতে ভিডিও প্রজেক্টরের ব্যবহারের অনুমতি দেওয়ায় রাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন নিহত নুসরাতের ছোট ভাই রাশেদুল হাসান রায়হান।

চলতি বছরের ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন নিপীড়নের দায়ে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ৬ এপ্রিল ওই মাদরাসা কেন্দ্রের সাইক্লোন শেল্টারের ছাদে নিয়ে অধ্যক্ষের সহযোগীরা নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। টানা পাঁচদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে ১০ এপ্রিল মারা যান নুসরাত জাহান রাফি।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএমএন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন