মঙ্গলবার ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৯ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৪ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রে আগামী’র সম্মাননা পেলেন শারমিন আহমদ ও ফারহানা হানিপ

আগস্ট ২৮, ২০১৯ | ১২:৩৩ অপরাহ্ণ

নিউইয়র্ক: শিক্ষা ও আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান এবং নারীর ক্ষমতায়নের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের দুই নারী ব্যক্তিত্বকে সম্মাননা প্রদান করেছে ওয়াশিংটন ডিসি ও ভার্জিনিয়ার সামাজিক সংগঠন আগামী সাউথইস্ট চ্যাপ্টার। শনিবার (২৪ আগস্ট) ভার্জিনিয়ার আলেকজান্দ্রিয়ায় লী সেন্টারের রিচার্ড কফম্যান অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত ফান্ড রাইজিং কনসার্টে বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের জ্যেষ্ঠ কন্যা শিক্ষাবিদ ও লেখক শারমিন আহমদ রিপি এবং যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি মালিকানাধীন সর্ববৃহৎ আইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পিপল এন টেকের প্রেসিডেন্ট, নারী উদ্যোক্তা ফারহানা হানিপের হাতে সম্মাননা তুলে দেন সংগঠনের প্রেসিডেন্ট আফসান খান।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আগামী সাউথইস্ট চ্যাপ্টারের প্রেসিডেন্ট আফসান খান, সংগঠনের অন্যতম ফাউন্ডার ও এডভাইজার, সাবেক প্রেসিডেন্ট মোস্তাফিজুর রহমান পারভেজ, মার্কেটিং ডিরেক্টটর ফারহানা জামান মৌ এবং সম্মাননাপ্রাপ্ত দুই নারী ব্যক্তিত্ব শারমিন আহমদ রিপি ও ফারহানা হানিপ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পিপল এন টেকের প্রতিষ্ঠাতা, সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ।

ফান্ড রাইজিং কনসার্টে সংগীত পরিবেশন করেন ব্যান্ডদল ফুয়াদ এন্ড ফ্রেন্ডস, ক্রোনেজ ও আনিলা নাজ চৌধুরী। অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার ছিল এনআরবি কানেক্ট টিভি।

শিক্ষাবিদ শারমিন আহমদ বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত তাজউদ্দীন আহমদ এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেত্রী প্রয়াত জোহরা তাজউদ্দীনের বড় মেয়ে। ১৯৮৪ সাল থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন। মানবাধিকার ও নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক বিভিন্ন ইন্সটিটিউট ও সংস্থায় পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন প্রায় দু’দশক ধরে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে তাজউদ্দীন আহমদের অবদান নিয়ে ২০১৪ সালে লেখা ‘তাজউদ্দীন আহমদ নেতা ও পিতা’ বইটি বিভিন্ন মহলে প্রশংসা পেয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নারীর ক্ষমতায়নে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ফারহানা হানিপ। নারীকে কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত করে সামাজিক ক্ষমতায়নে বিশেষ ভূমিকা রাখা ফারহানা হানিপ বাংলাদেশি মালিকানাধীন সর্ববৃহৎ আইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পিপল এন টেকের প্রেসিডেন্ট। তাঁর সবচেয়ে বড় অবদান তিনি পিপল এন টেক ফাউন্ডেশনের আওতায় ফিমেল ইন আইটি বা এফআইটি প্রজেক্টের মাধ্যমে আমেরিকায় প্রায় ৩ হাজার নারীকে আইটি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে উন্নত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। তাঁর স্বামী ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ পিপল এন টেকের প্রতিষ্ঠাতা। পিপল এন টেক এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৫ হাজার জনকে আইটি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের উন্নত বেতনে চাকরির ব্যবস্থা করেছে, যাদের বেশির ভাগই আগে আমেরিকায় অড জব করতেন। এখন তারা ৮০ হাজার থেকে ২ লাখ ডলার বেতনে চাকরি করছেন।

উল্লেখ করা যায় যে, বাংলাদেশের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের শিক্ষা প্রদানে ভূমিকা রেখে চলেছে ‘আগামী’। ২০০৩ সালে ক্যালিফোর্নিয়ায় সংগঠনটি আত্মপ্রকাশ করে। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে চারটি চ্যাপ্টার রয়েছে। সেগুলো হলো ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত আগামী ক্যালিফোর্নিয়া চ্যাপ্টার, ২০১২ সালে নিউইয়র্কে প্রতিষ্ঠিত আগামী নর্থইস্ট চ্যাপ্টার, ২০১৪ সালে ডিসি ও ভার্জিনিয়ায় প্রতিষ্ঠিত আগামী সাউথইস্ট চ্যাাপ্টার এবং ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত আগামী ক্যারোলাইনা চ্যাপ্টার। সংগঠনের তিনজন ফাউন্ডার হলেন ক্যালিফোর্নিয়ার বাবু রহমান, মাহমুদুল হাসান এবং নর্থ ক্যারোলাইনার সাবির মজুমদার।

এই চারটি চ্যাপ্টারে দুইশ’র বেশি স্বেচ্ছাসেবী রয়েছেন। তারা আগামী বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে দেশের ৩০টি স্কুলে এ পর্যন্ত ১২ হাজার সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষাপ্রদানে সহায়তা করেছেন।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন