মঙ্গলবার ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৯ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৪ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

৩ দফা দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার

সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯ | ১০:৩৮ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাসচাপার পৃথক দুই ঘটনায় সংগীত পরিচালক ও শিল্পী পারভেজ রব এবং মেহেদী হাসান নামে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় প্রশাসনের কাছে তিন দফা দাবি জানিয়ে সড়ক অবরোধ করেছে মেহেদীর সহপাঠীরা। তাদের দাবি আদায়ে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটামও দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় জড়িত ভিক্টর পরিবহনের মালিক ও চালকের বিচারের দাবিতে মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করে মেহেদির সহপাঠীরা। পরে দুপুর ১২টার দিকে তারা ঢাকা-আশুলিয়া সড়কের ধউর এলাকায় অবস্থিত ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজের সামনে রাস্তা অবরোধ করে প্রতিবাদ জানায়। প্রতিবাদ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন নিহত মেহেদির বাবা মো. ইউসুফ মিয়া ও তার স্বজনেরাও।

পরে তাদের সঙ্গে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘটনাস্থলে গিয়ে কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা জোনের এসি শচীন মল্লিক। এ সময় আন্দোলনে থাকা মেহেদির সহপাঠীরা তিন দফা দাবি দিলে তিনি তা শুনে বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন।

তাদের তিন দফা দাবির মধ্যে আছে, ভিক্টর পরিবহনের লাইসেন্স বাতিল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতদের পরিবারের সদস্যদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া ও সংগীত পরিচালক পারভেজ রবকে ভিক্টর পরিবহনের যে বাস চাপা দিয়েছে সেই বাসের চালকসহ সব স্টাফকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার।

বিজ্ঞাপন

এ সময় ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা জোনের এসি শচীন তাদের আশ্বস্ত করে বলেন, ‘ইতোমধ্যে মেহেদিকে যে বাস চাপা দিয়েছে তার চালক ও স্টাফকে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনা হয়েছে। সঙ্গীত পরিচালক পারভেজ রবকে ভিক্টর পরিবহনের যে বাসচাপা দিয়েছে সেই বাসের স্টাফদেরও গ্রেফতারে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।’

প্রশাসনের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে রাস্তায় অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হলেও তিন দফা দাবি পূরণ না হলে বুধবার সকাল ৯টায় আবার রাস্তা অবরোধ করা হবে বলে জানান বিক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীরা।

মেহেদীর সহপাঠী কাউছার সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমরা আমাদের ভাইকে হারিয়েছি। আর কোনো ভাইকে আমরা হারাতে চাই না। এই ভিক্টর পরিবহনের মতো গাড়ি রাস্তায় চললে কোনো মানুষের নিরাপত্তা নেই। তাই আমরা আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবো। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৪ ঘণ্টা সময় চেয়েছে, আমরা দিয়েছি। কিন্তু এই সময়ে দাবি পূরণ না হলে আমরা আবার রাস্তায় নেমে আসবো।’

এর আগে মেহেদীর বাবা মো. ইউসুফ মিয়া সারাবাংলাকে বলেন, ‘দিনের পর দিন সড়কে আমরা অসহায় হয়ে যাচ্ছি। প্রতিদিনই সড়কে প্রাণ হারাচ্ছে মানুষ। বিচার হচ্ছে না। আমার সন্তানকে হারিয়েছি, আমার সন্তানের বন্ধু আলভী আহত হয়ে হাসপাতালে। আলভীর কোমরে চিড় ধরেছে। কিছুদিন আগে ওর বাবাকেও প্রাণ হারাতে হয় এই সড়ক দুর্ঘটনায়। ভিক্টর পরিবহনের লাইসেন্স বাতিল করারও দাবি জানাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর তুরাগ ইস্ট-ওয়েস্ট হাসপাতালের সামনে সড়ক দুর্ঘটনায় শিল্পী ও সংগীত পরিচালক মো. পারভেজ রব (৫৬) মারা যান। এরপরে শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টর এলাকায় ভিক্টর পরিবহনের একটি বাসচাপায় মেহেদী হাসান (১৯) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়।

একই ঘটনায় ওইদিন একই পরিবহনের আরেকটি বাসচাপায় আহত হন সংগীত পরিচালক পারভেজ রবের ছেলে ও মেহেদীর বন্ধু ইয়ামিন আলভী (২০)। সে বর্তমানে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

সারাবাংলা/এসবি/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন