রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৭ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২২ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

গোল্ডেন রাইস অবমুক্ত করা হবে শিগগিরই: কৃষিমন্ত্রী

সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯ | ১১:৩৬ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: শিগগিরেই ভিটমিন এ সমৃদ্ধ ধানের নতুন জাত গোল্ডেন রাইস অবমুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, কৃষি বিজ্ঞানীরা ফসলের নতুন নতুন উন্নত জাত উদ্ভাবন করায় ফসলের নিবিড়তা ও উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। কিছু কিছু ক্ষেত্রে উদ্বৃত্তও থাকে। ভিটামিনের চাহিদা পূরণে অচিরেই ভিটামিন এ সমৃদ্ধ গোল্ডেন রাইস অবমুক্ত করা হবে।

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে কৃষিমন্ত্রীর দফতরে ইউএসএআইডি’র  প্রধান বিজ্ঞানি ড. রবার্ট বারট্রামের নেতৃত্ব এক প্রতিনিধি দলের বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন ইউএসএআইডি’র পরিচালক মি. জন স্মিথ স্রিম, ইকোনমিক গ্রোথ’র অফিসার ড. ওসাগি আইমিইউ মোহাম্মদ নুরুজ্জামান।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমাদের কৃষি বিজ্ঞানীরা আধিক তাপ সহনশীল গমের জাত উদ্ভাবনের ফলে দেশে গমের আবাদ হচ্ছে। এছাড়া ভুট্টা কখনই আমাদের ফসলের তালিকায় ছিল না, নতুন উন্নত জাত উদ্ভাবন করায় এর উৎপাদন ভালো হচ্ছে, হেক্টরে এর উৎপাদন ১২ থেকে ১৪ মেট্রিক টন। আগামী মৌসুমে পোলট্রি খামারের জন্য ভুট্টা আমদানি করতে হবে না, দেশে ভুট্টার উৎপাদনের মাধ্যমেই এর চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

ড. রবার্ট বার্ট্রাম বলেন, বাংলাদেশ ও আমেরিকার জনগণের ভেতর দৃঢ় বন্ধন রয়েছে। অর্থনৈতিক ও কৃষি ক্ষেত্রে এ বন্ধন খুব মজবুত। বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন সরকারের অর্থনৈতিক-বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে কৃষিক্ষেত্রে আরও বেশি গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে চায় মার্কিন সরকার।

এর আগে, গত শতকের নব্বইয়ের দশকে বাংলাদেশে কাজ করে গেছেন ড. রাবার্ট। এবার বাংলাদেশে এসে মন্ত্রণালয়ের বেশ কয়টি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন এবং বাংলাদেশের কৃষি ও আর্থসামাজিক উন্নয়ন দেখে তিনি অভিভূত বলেও জানান। তার মত, বাংলাদেশের কৃষি বিজ্ঞানীরা বেশ ভালো কাজ করছেন। এ ধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ এক অন্যন্য উচ্চতায় পৌঁছাবে।

বিটি বেগুন, হাইব্রিড ও ইমপ্রুভড ভ্যারাইটিসহ বায়োটেকনোলজি নিয়ে আলোচনা হয় কৃষিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে। জমিতে কীটনাশক ব্যবহার নিয়ে প্রতিনিধিরা বলেন, সবার আগে আমাদের পরিবেশের কথা ভাবতে হবে। প্রতিনিধিরা বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারিত্বমূলক কাজের ক্ষেত্র আরও বাড়াতে চান এবং কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে চান বলে জানান।

নিরাপদ ও পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে চান বলেও জানান ইউএসএএইডি’র প্রতিনিধিরা।

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন