রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৭ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২২ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

যৌন হয়রানির অভিযোগে ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ | ৩:১৮ পূর্বাহ্ণ

ঠাকুরগাঁও: যৌন হয়রানির অভিযোগে ঠাকুরগাঁওয়ে এক ইউপি সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে একজন নারীকে ঘরে আটকে রেখে তার নগ্ন ছবি ধারণ, চাঁদা দাবি ও অনৈতিক প্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাতে আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওর্য়াড সদস্য অশ্বিনী কুমার বর্মণকে (৩২) আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সদর থানার ওসি মো. আশিকুর রহমান।

তিনি জানান, আটক বর্মন শাসলাপিয়ালা গ্রামের বিজয় কুমার বর্মণের ছেলে। ভুক্তভোগী নারীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে আটক করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০ দিন আগে আউলিয়াপুর ইউনিয়নের নারায়ণ চন্দ্র বর্মণের ছেলে জীবন চন্দ্র বর্মণ (২৬) তাকে ভুল বুঝিয়ে তার শহরের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে একটি ঘরে তাকে আটকে রেখে জীবন ও অশ্বিনী কুমার তার গলায় ছুরি ধরে নগ্ন ছবি ধারণ করে এবং শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এ সময় বাড়ির বাইরে পাহারা দেয় একই এলাকার বিলাতু (৪০) ও রাজেন্দ্র (৪০) নামে দুই ব্যক্তি। এক সময় জীবন ও অশ্বিনী তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে তিনি চিৎকার শুরু করলে তারা ব্যর্থ হয়।

পরে জীবন ও অশ্বিনী মোটরসাইকেলে করে নারীটিকে তার স্বামীর বাড়ির পাশে নামিয়ে দেয়।  এসময় তারা এক লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ারও হুমকি দেয়। লোকলজ্জার ভয়ে এতো দিন ঘটনাটি তার স্বামীকেও জানায়নি।

বিজ্ঞাপন

এরপর গত ২৫ আগস্ট বিকেলে মেয়েটির স্বামীর অনুপস্থিতিতে তার বাসায় এসে ইউপি সদস্য অশ্বিনী কুমার আবারও তার কাছে অশ্লীল ছবির বিনিময়ে এক লাখ টাকা দাবি করে। এ সময় সে ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তাৎক্ষণিক সেই ইউপি সদস্য অশ্বিনী কুমারকে তার স্বামীর গচ্ছিত টাকা থেকে  ২০ হাজার টাকা দেয়। অশ্বিনী কুমার টাকা হাতে নিয়ে আগামী দুই দিনের মধ্যে বাকি আশি হাজার টাকা না দিলে এবং তার সাথে দৈহিক সম্পর্ক না করলে ছবিগুলো ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবার হুমকি  দেয়।

হুমকির ঘটনার পর মেয়েটি তার স্বামীকে সব কিছু জানায়। মেয়েটির স্বামী এলাকার চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য মেম্বারদের জানালে একটি সালিশ বৈঠক হয়। সেখানে অভিযুক্তরা তাদের অপকর্মের কথা স্বীকার করে আবারও হুমকি দিয়ে বলে আমরা এটা ইন্টারনেটে ছেড়ে দেব, তোমাদের কিছু করার থাকলে কর।
পরে উপায় না পেয়ে ওই নারী  চারজনের নাম উল্লেখ করে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়। যার ভিত্তিতেই তাকে আটক করা হয়।

সারাবাংলা/ এজেডকে/

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন