সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

‘উপজেলায় এমপিদের উপদেষ্টা থাকা নিয়ে প্রশ্ন অবান্তর’

সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ | ৯:৫৮ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

সংসদ ভবন থেকে: উপজেলা পরিষদের বৈঠকে সংসদ সদস্যদের (এমপি) উপস্থিত থাকা নিয়ে তোলা প্রশ্নকে অবান্তর বলে উড়িয়ে দিয়েছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, এমপিরা উপদেষ্টা থাকলে কাজের মান ভালো হয়, শান্তিশৃঙ্খলা বজায় থাকে। এখানে এমপিদের উপদেষ্টা থাকাটাই বেশি বাঞ্ছনীয়।

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্থ অধিবেশনে মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বের বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানার সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

আরও পড়ুন- ‘চাহিদার চেয়ে ১০ কোটি লিটার বেশি পানি উৎপাদন করছে ওয়াসা’

বিজ্ঞাপন

উপজেলা পরিষদের কাঠামো থেকে এমপিদের বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়ে রুমিন ফারহানা বলেন, উপজেলা পরিষদ আইনের ২৫ ধারায় সংসদ সদস্যদের উপদেষ্টা রাখার বিধান উপজেলা পরিষদের স্বাধীনভাবে কাজ করার ক্ষেত্রে বাধা তৈরি করে। এটি সংবিধানের ৫৯ ধারারও পরিপন্থি। গুরুত্বপূর্ণ স্থানীয় সরকার ইউনিট সত্যিকার অর্থে কার্যকর করতে এই ধারায় সংশোধনী এনে সংসদ সদস্যদের বাদ দেওয়ার কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হবে কি?

জবাবে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, এই প্রশ্নটা কেন করা হয়? এটা বাইরে থেকে মাঝে-মধ্যে শুনতাম। সংসদ সদস্যরা যার যার এলাকাতে নির্বাচিত প্রতিনিধি। ওই এলাকার জনগণের দেখভাল করা, তাদের ভালো-মন্দের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার অধিকার তারা রাখেন। এমপিরা যদি উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা হিসেবে থাকেন, তাহলে উপজেলা পরিষদের যেসব মিটিং হয়, সেগুলোর মান বাড়ে। তারা উপদেষ্টা হিসেবে প্রয়োজনীয় উপদেশ দেন। কোথা থেকে এরকম অবান্তর প্রশ্ন আসছে যে সংসদ সদস্যরা থাকলে সেখানে উপজেলা পরিষদ স্বাধীনভাবে কাজ করতে অসুবিধা হবে?

মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার অর্থ কী? সরকার যে বরাদ্দ দিচ্ছে, সেগুলো ঠিকঠাকমতো কাজ করছে কি না, সেগুলো দেখভাল করার প্রয়োজন আছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে কিংবা এমপিরা উপস্থিত থেকে দেখাশুনা করলে কাজের মান ভালো হয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভালো চলে, এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা বজায় থাকে, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি হয়। উপজেলায় এমপিদের অবদান রাখাটা আমার কাছে মনে হয় না কোনোভাবেই আপত্তিকর মনে হতে পারে। বাস্তবে এমপিদের উপদেষ্টা থাকাটাই অনেক বেশি বাঞ্ছনীয়।

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন