বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ২ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ডিসেম্বরে আসছে কাস্টমস-ভ্যাট কর্মকর্তাদের জলপাই রঙা ‘ইউনিফর্ম’

সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ | ৯:২১ পূর্বাহ্ণ

শেখ জাহিদুজ্জামান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে আগামী ডিসেম্বর থেকে জলপাই রঙের ইউনিফর্ম চালু করা হচ্ছে। পরিচয় বিভ্রান্তিতে বিভিন্ন সময়ে রাজস্ব কর্মকর্তাদের ওপর হামলা ও হয়রানির পরিপ্রেক্ষিতেই রাজস্ব বোর্ডের এমন সিদ্ধান্ত। দুই বিভাগের সিপাহি থেকে কমিশনার পর্যন্ত ইউনিফর্ম বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। এই পদক্ষেপে এনবিআর কর্মকর্তাদের আত্মবিশ্বাস বেড়ে রাজস্ব আহরণে গতি আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিজ্ঞাপন

গত ৩ সেপ্টেম্বর কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে কর্মরতদের ‘সার্ভিস ইউনিফর্মের’ আওতায় আনতে বিধিমালা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। বাংলাদেশ কাস্টমস ও ভ্যাট পোশাক বিধিমালা- ২০১৯ এ বলা হয়েছে, এনবিআরের অধীনস্ত কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে কর্মরত সিপাহি, সাব-ইন্সপেক্টর, সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা, রাজস্ব কর্মকর্তা, সহকারি কমিশনার, ডেপুটি কমিশনার, যুগ্ম কমিশনার, অতিরিক্ত কমিশনার ও কমিশনার এবং সমপদমর্যাদার অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীর ক্ষেত্রে এই বিধিমালা প্রযোজ্য হবে।

জারি হওয়া প্রজ্ঞাপনে ইউনিফর্মের পরিচয় সম্পর্কে বলা হয়েছে, নতুন ইউনিফর্মের রং হবে শার্ট –জলপাই, প্যান্ট-গাঢ় জলপাই রঙের। কমিশনার ও মহাপরিচালকের ক্ষেত্রে একটি শার্টে ‘সোনালি দ্বার’ এবং মধ্যবর্তী ফাঁকা অংশে তিনটি ‘গৌরব তারকা’ থাকবে। অতিরিক্ত কমিশনার ও অতিরিক্ত মহাপরিচালকের ক্ষেত্রে একটি ‘সোনালি দ্বার’ ও মধ্যবর্তী ফাঁকা অংশে দুটি ‘গৌরব তারকা’, যুগ্ম কমিশনার ও যুগ্মপরিচালকের ক্ষেত্রে একটি ‘সোনালি দ্বার’ ও মধ্যবর্তী ফাঁকা অংশে একটি ‘গৌরব তারকা’, উপকমিশনার ও উপপরিচালকের ক্ষেত্রে একটি ‘সোনালি দ্বার’ থাকবে। সহকারি কমিশনার, সহকারি পরিচালকের ক্ষেত্রে তিনটি ‘গৌরব তারকা’, রাজস্ব কর্মকর্তার ক্ষেত্রে দুটি ‘গৌরব তারকা’ এবং সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তার ক্ষেত্রে একটি ‘গৌরব তারকা’ থাকবে।

সাব-ইন্সপেক্টর ও সিপাহিরা মাথায় গাঢ় জলপাই রঙের বেরেট ক্যাপ পরবেন, যার সামনে পৌনে দুই ইঞ্চি ব্যাসের দশমিক ১২৫ ইঞ্চি পুরুত্বের পিতলের চাকতির ওপর কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের লোগো থাকবে।

বিজ্ঞাপন

কর্মকর্তাদের ইউনিফর্মে গর্জেট প্যাঁচ থাকবে, যা হবে সমুদ্র নীল ভিত্তির ওপর রুপালি জরির সুতা দিয়ে এমব্রয়ডারি করা। কমিশনার ও মহাপরিচালকের ক্ষেত্রে গর্জেট প্যাঁচে জলপাইপত্র সংবলিত বিপরীতমুখী লম্বালম্বি চারটি শাখা এবং অতিরিক্ত কমিশনার ও অতিরিক্ত মহাপরিচালকের ক্ষেত্রে জলপাইপত্র সংবলিত একটি শাখা থাকবে।

গৌরব তারকা সম্পর্কে বিধিমালায় বলা হয়েছে, ধাতব রুপালি রঙের গোলাকার বৃত্তের মাঝখানে জাতীয় ফুল শাপলা ও বৃত্তের বাইরের অংশ তরঙ্গাকার ধারালো কিনার দ্বারা বেষ্টিত। আর সোনালি দ্বার হবে রূপালি রঙের জলপাইয়ের শাখা সম্বলিতপত্রগুচ্ছের মধ্যস্থলে ধাতব সোনালি রঙের একটি লোহার দরজা এবং উপরিভাগে শাপলা।

এদিকে এনবিআর বলছে, ব্রিটিশ আমল থেকে দেশের উন্নয়নে কাজ করা কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের কর্মকর্তাদের হামলার শিকার হতে হয়েছে। এমনকি অন্যান্য অনেক সরকারি সংস্থার ইউনিফর্ম থাকলেও এই দুই বিভাগের নেই। এতে নানা ধরনের সেবা দিতে এবং আইন প্রয়োগ করতে অভিযান পরিচালনায় অনেক সময় পরিচয় বিভ্রান্তিতে পড়তে হয়েছে তাদের। এ কারণে ২০১৭ সাল থেকে ইউনিফর্ম নিয়ে কাজ শুরু করে এনবিআর। আর ২০১৮ সালের প্রথম দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের কর্মকর্তাদের ইউনিফর্ম অনুমোদন করেন। এরপর বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা শেষে চলতি মাসে প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর।

কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের ইউনিফর্ম নিয়ে কাজ করা তৎকালীন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ও বর্তমানে ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার ড. মইনুল খান সারাবাংলাকে বলেন, ‘কাস্টমসের জন্য ইউনিফর্ম বিশ্বের অনেক দেশে চালু আছে। এই পোশাকে সেবার মান উন্নত হবে, কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের পেশাদারিত্ব বেড়ে যাবে এবং একইসঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব যেমন রাজস্ব আহরণ, চোরাচালান প্রতিরোধ, বাণিজ্য ভিত্তিক মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ এবং দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ড সচল রাখতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে। সার্বিকভাবে এনবিআরের কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগে সরকারের সুশাসন প্রতিষ্ঠায় এই ইউনিফর্ম সহায়ক হবে।’

ইউনিফর্ম নিয়ে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ সারাবাংলাকে বলেন, ‘ইউনিফর্ম হলে ভাল হবে। আমি এটাকে স্বাগত জানাই। কেননা ভ্যাট ও কাস্টমস সার্ভিস জনগণের সাথে সম্পৃক্ত। নতুন করে ইউনিফর্ম হওয়ায় জনগণের সঙ্গে এনবিআর কর্মকর্তাদের এক যোগসূত্র তৈরি হবে। কেননা প্রত্যেকের পরিচয়ের প্রয়োজন রয়েছে। সকল সংস্থার ইউনিফর্ম রয়েছে সেখানে কাস্টমসের না থাকাটা অযৌক্তিক। তাই এই ইউনিফর্ম এনবিআরে নতুন মাত্রা যোগ করবে।’

এ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সারাবাংলাকে বলেন, ‘ইউনিফর্ম চালু করতে বেশি সময় লাগবে না। এখন পোশাক বানাতে যে আনুসাঙ্গিক বিষয়গুলোর প্রয়োজন সেগুলো কেনাকাটা চলছে। আমরা আশা করছি আগামী ডিসেম্বরে আমরা পোশাক চালু করতে পারবো। বিশেষ করে একটি দিবসে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে এটি চালু করতে চাই। যত দ্রুত সম্ভব আমরা এটি চালু করব। সেই হিসেবে আমাদের টার্গেট এখন ডিসেম্বর।’

কেন ইউনিফর্ম চালু করা হচ্ছে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্বে কাস্টমসের ইউনিফর্ম রয়েছে। এছাড়া রাজস্ব আহরণে কিংবা চোরাচালান প্রতিরোধে বা কোনো অভিযানে পরিচয় বিভ্রান্তি তৈরি হয়। তখন কাস্টমস বা ভ্যাট বিভাগের কর্মকর্তাদের হয়রানির শিকার কিংবা সম্মানহানির ঘটনাও ঘটে। এ কারণে ইউনিফর্মের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। আশা করছি এটি চালু হলে কর্মকর্তাদের মধ্যে নতুন শক্তির সঞ্চার হবে।’

সারাবাংলা/এসজে/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন