রবিবার ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৪ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ব্যবসায় টিকে থাকতে প্রয়োজন ‘ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভ্যুলেশন’

সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ | ৫:৩৭ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আগামী দিনে ব্যবসা হবে সম্পূর্ণভাবে ফোর্থ জেনারেশন বিজনেস। এতে সফল হতে হলে প্রয়োজন ‘ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভ্যুলেশন’। এটি করতে না পারলে ব্যবসায় টিকে থাকা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) অনুষ্ঠিত প্রথম বিজনেস লিডার্স কার্নিভাল-২০১৯’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

আতিকুল ইসলাম মেয়র বলেন, ‘বর্তমানে ব্যবসায়ীরা ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভ্যুলেশন চলে যাচ্ছে। এটি হলো ব্যবসায় সর্বশেষ টেকনলজির ব্যবহার। এর মাধ্যমে আমাদের স্মার্ট অ্যান্ড কানেক্টিভ ফ্যাক্টারি করতে হবে। বিগ ডাটা ব্লক চেঞ্জের মধ্যে যেতে হবে। আমাদের সমস্ত ইনফরমেশন বিগ ডাটা ব্লকের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। এগুলো করা না গেলে আমরা চলতে পারবো না।’

আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনতে হবে জানিয়ে আতিকুল বলেন, ‘শুধু শ্রমিকের মজুরি কম হলেই উৎপাদন খরচ কমবে না। উৎপাদন খরচ কমাতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন আধুনিক টেকনোলজির সঙ্গে প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করা। ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভ্যুলেশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ অনেকে রোভটিংয়ের দিকে চলে গেছে। ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভ্যুলেশন যেতে না পারলে আমাদের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে।’

কার্নিভালের মূল উদ্যোক্তা ও সোসাইটি ফর লিডারশিপ স্কিলস্‌ ডেভেলপমেন্টের (এসএলএসডি) সভাপতি অধ্যাপক মঈনুদ্দিন চৌধুরী এতে সভাপতিত্ব করেন। সোসাইটি ফর লিডারশিপ স্কিলস্‌ ডেভেলপম্যান্ট (এসএলএসডি) ও এন অ্যাফেয়ার্স যৌথভাবে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ হিউম্যান রিসোর্স ওরগানাইজেশন্সের (এফবিএইচআরও) সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন। বক্তব্য রাখেন, লে. জেনারেল (অব.) মো. মঈনুল ইসলাম, গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) এম হাসিবুল হাসান, উইম্যান এন্টারপ্রিনারস্‌ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নীলুফার করিম, জিটিভি ও সারাবাংলা.নেট এর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, অতিরিক্ত সচিব নিরুজ্জামান প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন

কার্নিভালে লে. জেনারেল (অব.) মো. মঈনুল ইসলাম বলেন, ‘লিডারশিপ কাউকে হাতে তুলে দিতে হয় না। এটা অর্জন করে নিতে হয়। তিনি বলেন, শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়নের মাধ্যমে আমাদের লিডারশিপ অর্জন করতে হবে।’

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক মঈনুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘মানবসম্পদ উন্নয়নের কাজে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। দেশ এখন উন্নয়নের যাত্রাপথে। এই উন্নয়নের অন্যতম অংশীদার বেসরকারি খাত। এই খাতে সরকারের আরও বেশি সহযোগিতা প্রয়োজন।’

প্রথম বিজনেস লিডার্স কার্নিভাল-২০১৯ পাঁচটি লক্ষ্যকে সামনে রেখে আয়োজন করা হচ্ছে। সেগুলো হচ্ছে- শিক্ষা বিনোদনের ও নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ব্যবসায়িক জ্ঞান সম্প্রসারণ, ব্যবসায়ে নারী নেতৃত্ব উৎসাহিত করা, পরবর্তী প্রজন্মের ব্যবসায়িক নেতৃত্বের মাঝে সৃজশীলতা তৈরি, ব্যবসায়িক সমাজকে সঠিকভাবে করপোরেট সোসাল রেসপন্সিবিলিটির ব্যাপারে আরও সচেতন করা এবং বাংলাদেশের ব্যবসায়িক সমাজকে ৪র্থ/৫ম শিল্প বিপ্লবকে মোকাবিলায় প্রস্তুত করা। এছাড়াও কার্নিভালে মোট ৫টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রায় এক হাজার ছাত্র-ছাত্রীসহ পাঁচশত পেশাজীবী, শিক্ষাবিদ, ব্যবসায়ী, শিল্পপতি, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও গণমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ১০ জনকে বিজনেস লিডার্স এওয়ার্ড এবং ১০ জনকে বিজনেস ইনোভেশন এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

কার্নিভালের মিডিয়া পার্টনার হিসেবে রয়েছে- জিটিভি, সারাবাংলা.নেট, ডেইলি স্টার, বণিক বার্তা, পেইজেস, হারনেট টিভি এবং সিএনআই।

সারাবাংলা/জিএস/এমও

বিজ্ঞাপন

Tags: , , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন