বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

কক্সবাজারে প্রথমবারের মতো ‘ওশান ডান্স’

সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯ | ৮:১২ অপরাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট

প্রতিবারের মতো আসছে শীতেও অতিথি পাখি আর পর্যটকে ভরে উঠবে দেশ। বিশেষ করে সমুদ্রকন্যা কক্সবাজারের সৈকতে বসবে নানা সংস্কৃতির মানুষের মেলা। সেই আনন্দে নতুন মাত্রা যোগ করতে উৎসব মুখর সৈকতে বসতে যাচ্ছে চার দিনের নৃত্যউৎসব ‘ওশান ডান্স ফেস্টিভাল’।

বিশ্বব্যাপী নৃত্যশিল্পীদের সংগঠন ‘দ্য ওয়ার্ল্ড ডান্স অ্যালায়েন্স-এশিয়া প্যাসিফিক (ডব্লিউডিএ-এপি)’, তাদের বার্ষিক উৎসবের আয়োজন করতে যাচ্ছে আগামী ২২ থেকে ২৫ নভেম্বর। একই সময়ে ডব্লিউডিএ-এপি’র বাংলাদেশ শাখা নৃত্যযোগ শুরু করতে যাচ্ছে ‘ওশান ডান্স ফেস্টিভাল’ নামের একটি দ্বি-বার্ষিক নৃত্যউৎসব।

ডব্লিউডিএ-এপি’র দক্ষিণ এশিয়ার সহ-সভাপতি ও নৃত্যশিল্পী লুবনা মারিয়াম (বাঁয়ে), নৃত্যযোগের সভাপতি ও নৃত্যশিল্পী আনিসুল ইসলাম হিরু


বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য এবং এর সঙ্গে সাংস্কৃতিক পর্যটনের মেলবন্ধন রচনার জন্য প্রথমবারের মতো নৃত্যযোগের এ আয়োজন। এশিয়ার ১৫টি দেশ থেকে এই উৎসবে যোগ দেবেন নৃত্যশিল্পী, শিক্ষক, গবেষক ও কোরিওগ্রাফাররা।

আর দর্শকদের এই উৎসব উপভোগ করতে চাইলে অনলাইনে করতে হবে নিবন্ধন। এরইমধ্যে নিবন্ধন শুরু হয়ে গেছে। আগ্রহীরা www.oceandancefestival.com ঠিকানায় ঢুকে নিবন্ধন করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি ও নবীন নৃত্যশিল্পী


সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর এক হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ উৎসবের বিস্তারিত জানানো হয়। ডব্লিউডিএ-এপি’র দক্ষিণ এশিয়ার সহ-সভাপতি লুবনা মারিয়ামের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শহীদুল আলম সাচ্চু, সানাউল আরেফিন, শিবলী মোহম্মদ ও ডব্লিউডিএ-এপির স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য জুডিথা অল মাকার। স্বাগত বক্তব্য দেন নৃত্যযোগের সভাপতি ও নৃত্যশিল্পী আনিসুল ইসলাম হিরু। এ সময় ওশান ড্যান্স ফেস্টিভ্যালের একটি লোগো উন্মোচিত হয়।

অনুষ্ঠানে কথা বলছেন (বাঁ থেকে)- শিবলী মোহম্মদ ও শহীদুল আলম সাচ্চু


উৎসবে প্রদর্শিত হবে বাংলাদেশ এশিয়া ও এশিয়ার প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বিভিন্ন ঘরানার নৃত্য। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এ আয়োজনে সহযোগিতা করছে।

 

অনুষ্ঠানে কথা বলছেন (বাঁ থেকে)- সানাউল আরেফিন, জুডিথা অল মাকার ও সঞ্চালনায় ছিলেন সানারৈ দেবী শানু

 

ইতিমধ্যে তাইওয়ান, কোরিয়া, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়াসহ দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশের অংশগ্রহণকারীরা এ উৎসবে আসবেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

ওশান ডান্স ফেস্টিভালের এক অনন্য অধ্যায় হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ভিন্ন ভিন্ন তিনটি যৌথ প্রকল্প। অন্যটি হচ্ছে ১৫ দিনের একটি কোরিওল্যাব, যেটি শুরু হবে উৎসবের আগে। কানাডিয়-ইরানি অভিজ্ঞ নৃত্য গুরু সাশার যারিফ ৫ থেকে ১৫ নভেম্বর এই কোরিওল্যাবটি পরিচালনা করবেন। এখানে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে মধ্যপ্রাচ্যের নৃত্য ঘরানা ‘ডান্স অব মুগাম’। এছাড়া উৎসবে থাকবে দক্ষিণ এশিয়ার লোকনৃত্য।

ছবি: আশীষ সেনগুপ্ত

সারাবাংলা/পিএ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন