সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

শিশু সামিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা, পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন

সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯ | ৯:৫৪ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীর ওয়ারীতে সাতবছরের শিশু সামিয়া আফরিন সায়মাকে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়েছে। আগামী ৭ অক্টোবর এ মামলার প্রতিবেদন দাখিলের নতুন দিন ঠিক করেছেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলা তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ আর্জুন প্রতিবেদন জমা দিতে পারেননি। এ জন্য ঢাকা মহানগর হাকিম মো. মইনুল ইসলাম প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নতুন তারিখ ঠিক করেন।

শিশু সামিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় তার বাবা আব্দুস সালাম গত ৬ জুলাই ওয়ারী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি দায়ের করেন। এরপর গত ৭ জুলাই কুমিল্লার ডাবরডাঙা থেকে আসামি হারুনকে গ্রেফতার করা হয়। এর পরদিন গত ৮ জুলাই হারুন আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। বর্তমানে সে কারাগারে রয়েছে।

মামলার এজাহারে থেকে জানা যায়, গত ৫ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মাকে বলে শিশু সামিয়া ওই ভবনের মনির হোসেনের ফ্ল্যাটে খেলতে যায়। সামিয়ার বাবা মাগরিবের নামাজ শেষে বাসায় ফিরে তার মাকে মেয়ের কথা জিজ্ঞাসা করেন। তখন সামিয়ার মা জানান যে, পাশের ফ্ল্যাটের প্রতিবেশি মনিরের বাসায় খেলতে গেছে। সন্ধ্যা আনুমানিক ৭টার সময় সামিয়া ফিরে না আসায় তার মা সানজিদা আক্তার মনিরের বাসায় খুঁজতে যায়। এ সময় মনিরের বাসায় মেয়েকে না পেয়ে সমস্ত বিল্ডিং খুঁজতে থাকে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বিল্ডিংয়ের নবম তলার উত্তরপাশে নির্মাণাধীন ফ্ল্যাটের রান্নাঘরের সিঙ্কের নিচে গলায় পাটের রশি দিয়ে পেঁচানো ও রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়ের মৃতদেহ দেখতে পান।

বিজ্ঞাপন

এরপর ওয়ারী থানার পুলিশ এসে ওই ফ্ল্যাট থেকে সামিয়ার মৃতদেহ ‍উদ্ধার করে এবং ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

এজাহার থেকে আরও জানা যায়, সামিয়ার মৃতদেহের সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, তাকে ধর্ষণের পর গলায় পাটের রশি পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন হারুন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এআই/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন