বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ২ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

দুর্দান্ত খেলে কাতারের সঙ্গে হেরেছে বাংলাদেশ

সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯ | ৩:৫২ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: গত বছরের আসরে এই কাতারকে হারিয়েছিলো বাংলাদেশের কিশোররা। এবারও চেনা প্রতিপক্ষকে পেয়ে স্বস্তির ঢেকুর না তুললেও অতীতের সুখস্মৃতি নিয়েই মাঠে নেমেছিলো লাল-সবুজরা। দুর্দান্ত খেলেও এবার আর উত্তরসূরীরা জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেনি। হার নিয়ে এএফসি কাপ অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের মিশন শুরু করতে হয়েছে জনি-মেহেদীদের।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় শুরু হওয়া ম্যাচে আয়োজক কাতারের কাছে বাংলাদেশ হেরেছে ২-০ ব্যবধানে। পুরো ম্যাচে ভালো খেলে হারের স্বাদ নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে রবার্ট মার্টিন রাইলসের শিষ্যদের।

অ্যাস্ট্রো টার্ফে খেলার অনভিজ্ঞতাকে ছাপিয়ে ম্যাচের শুরুটা দারুণ করেছিল জনিরা। বিশ্বকাপ আয়োজকদের প্রথমার্ধে আটকে দিয়ে ভালো গোলের সুযোগও তৈরি করে বাংলাদেশ। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ৩১ মিনিটে দারুণ একটি গোলের সুযোগও মিস হয়।

প্রথমার্ধে গোলশূন্য ম্যাচ উপহার দিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে যেন খেই হারায় বাংলাদেশ। ৫৫ মিনিটে আব্দুল্লাহর দারুণ গোলে লিড নেয় কাতার। ঠাণ্ডা মাথায় বল জালে জড়াতে এতোটুকু ভুল করেননি কাতারের এই ফুটবলার। ডি বক্সের ভেতর থেকে ডিফেন্সের দারুণ গ্যাপের পরীক্ষা নিয়ে বল জালে জড়িয়েছেন ভেলকির মাধ্যমে।

বিজ্ঞাপন

এই এক গোলেই হয়তো ব্যবধান রাখা যেত! তবে একেবারে শেষ মুহূর্তে আরেকটি গোল হজম করে রাইল্সের শিষ্যরা। ৯০ মিনিটে দোসারির গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে স্বাগতিকরা। এই ২-০ ব্যবধানে হেরে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।

তবে পুরো ম্যাচে দুর্দান্ত অনেক সেভ দিয়েছেন গোলরক্ষক মেহেদী হাসান। গত বছর তার হাত ধরেই সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। তার গ্লাভসের দুর্দান্ত সেভগুলো বড় ব্যবধান হওয়া থেকে বাঁচিয়েছে নিঃসন্দেহে।

হারের ভাগ্য নিয়ে মিশন শুরু করলেও বাংলাদেশের সামনে আরও দুটি ম্যাচ অপেক্ষা করছে।

এদিকে 'ই' গ্রুপের আরেক ম্যাচে ভুটানকে ১০-১ গোলে হারিয়েছে ইয়েমেন। এই ভুটানের সঙ্গেই বালাদেশের ম্যাচটি হবে ২০ সেপ্টেম্বর। ২২ সেপ্টেম্বর ইয়েমেনের বিপক্ষে গ্রুপের শেষ ম্যাচ খেলবে লাল-সবুজ কিশোররা।

১১ গ্রুপে ভাগ হয়ে ৪৭টি দেশ এই বাছাইপর্বে অংশ নিচ্ছে। গ্রুপ 'ই'তে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক কাতার, ইয়েমেন ও ভুটান। ১১ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ও সেরা ৪ রানার্সআপ যাবে মূল পর্বে।

সারাবাংলা/জেএইচ/টিএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন