বিজ্ঞাপন

একটি আন্তর্জাতিক তেলের চালানও বাতিল করেনি আরামকো!

September 22, 2019 | 2:21 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সৌদি আরবের রাষ্ট্রায়ত্ত তেল সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান আরামকোর শীর্ষ কর্মকর্তা আমিন নাসের জানিয়েছেন, তেল স্থাপনায় ড্রোন হামলার পরও তাদের কোম্পানির তেল সরবরাহে নাটকীয় কোনো পরিবর্তন আসেনি। আন্তর্জাতিক বাজারে যে চাহিদা ছিল তা পূরণ করা হয়েছে। একটি তেলের চালান বাতিল করা হয়নি। আর তাই অতীতের যেকোনো সময়ে চেয়ে আরামকো এখন আরও শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার খবরে এসব তথ্য দেওয়া হয়েছে।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর আরামকোর আবকোয়েক ও খুরাইস প্লান্টে হুতি বিদ্রোহীরা ড্রোন হামলা চালালে প্রায় অর্ধেক তেল উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হয় আরামকোর। যে হিসেবের পরিমাণ দিনে প্রায় ৫.৭ মিলিয়ন ব্যারেল। তবে এই মাসের শেষ নাগাদ আরামকো পুরোদমে তেল উৎপাদনের সক্ষমতা লাভ করবে বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি।

বিজ্ঞাপন

মাটির নিচে কেন তেল মজুত করেছে যুক্তরাষ্ট্র?

আমিন নাসের বলেন, প্লান্টে হামলার পর দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। না হলে তেলের বিশ্ববাজারে এর প্রভাব পড়ত ও বিশ্ব অর্থনীতি আরও বড় বিপর্যয়ের মুখোমুখি হতো।

হামলার প্রায় ৬ দিন পর আরামকো তার ক্ষতিগ্রস্ত তেল স্থাপনায় গণমাধ্যমকে আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানায়। তেল স্থাপনা মেরামতের জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে সরঞ্জাম আনা হচ্ছে । আরমকোর কর্মীরা রাত-দিন কাজ করে যাচ্ছেন, যাতে তেলের উৎপাদনশীলতা আগের মতো ফিরিয়ে আনা যায়।

নাসের আরও বলেন, একটি আন্তর্জাতিক জাহাজও তেলের জন্য আটকে থাকেনি। বিশ্বের প্রয়োজন অনুসারে আমরা তেল সরবরাহ করে যাব।

এদিকে মঙ্গলবার সৌদি আরবের জ্বালানিমন্ত্রী আব্দুল আজিজ বিন সালমান জানিয়েছেন, ক্রেতাদের কাছে তেলের সরবরাহ নিশ্চিত করতে সৌদি আরব তার রিজার্ভে রাখা তেল ব্যবহার করেছে।

সারাবাংলা/এনএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন