রবিবার ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৪ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

সাফ মঞ্চে ব্যর্থতার পর এএফসিতেও ব্যর্থতা

সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ | ৯:১৭ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সাফ মঞ্চে ব্যর্থতার পর এএফসির মঞ্চেও ব্যর্থতার গল্প লিখে ফিরছে বাংলাদেশের কিশোররা। আজ ইয়েমেনের কাছে হারের স্বাদ নিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে জনি-মেহেদীদের। টুর্নামেন্টে একমাত্র অর্জন ভুটানকে হারানো। প্রতিবারের ন্যায় এবারও বড় মঞ্চে ব্যর্থতার অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরছে ছেলেদের ফুটবল। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে এবারতো সাফ মঞ্চে ব্যর্থতা নিয়ে এএফসিতে এক মাসের ব্যবধানে হারের গল্প লিখেই ঘরে ফিরছে রবার্ট মার্টিন রাইল্সের শিষ্যরা।

বিজ্ঞাপন

কাতারের কাছে লড়াই করে হারার পর ভুটানকে হারিয়ে আত্মবিশ্বাস নিয়ে মাঠে নামা জনি-মেহেদীদের জন্য বড় পরীক্ষার নাম ছিল টুর্নামেন্টের অপরাজিত দল ইয়েমেন।

আজ কাতারের মাটিতে শেষ ম্যাচটা তাই সুখে রাঙাতে পারেনি বাংলাদেশের কিশোররা। বরং পুরো ম্যাচে ইয়েমেন আধিপত্য খেলে ম্যাচটা বড় ব্যবধানে বের করে নিয়ে গেছে। ৩-০ ব্যবধানটা সেটারই প্রতিচ্ছবি।

তবে প্রথম ৪৫ মিনিট যেন রক্ষণে চির ধরতে দেয়নি লাল-সবুজর। দ্বিতীয়ার্ধে এসেই সেই রক্ষণ খেই খেলো ইয়েমেনের আক্রমণভাগের সামনে। বাড়তি উইঙ্গার খেলিয়ে ৬৪ মিনিটের মাথায় এগিয়ে যায় ইমেয়েন। মাঝমাঠ বল এগিয়ে নিয়ে ডি বক্সের বাইরে থেকে পাস বাড়ায় ইমেয়েনের ফুটবলার। ডি বক্সের ভেতর থেকে জনিকে ড্রিবলিং করে জায়গা করে নিয়ে বাঁ পায়ে দারুণ ফিনিশিং করেন মোহাম্মদ আলী।

বিজ্ঞাপন

আর পরে থাকতে হয়নি ইয়েমেনকে। কর্নার থেকে আসা উড়ন্ত বলে হেড থেকে দারুণ গোল করেন হামজা মাহরুস। তার গোলেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে দলটি।

আবার ঠিক ছয় মিনিট পর ইয়েমেনের তৃতীয় গোলটি আসে হামজা মাহরুসের পা থেকে। ৭৮ মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে থেকে ওয়ান টু ওয়ানে গোল করেন নিজের দ্বিতীয় গোলটি তুলে নেন হামজা।

এই ফলটা আরও বড় হতো। তবে ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ের শেষ মিনিটে যদি ইমেয়েনের নেয়া পেনাল্টি শটটা যদি দুর্দান্তভাবে মেহেদী ঠেকিয়ে না দিতো তাহলে হালি গোলের স্বাদ নিয়েই মাঠ ছাড়তে হতো বাংলাদেশকে।

আরেকবার এএফসির মতো জায়গায় ব্যর্থতার গল্প লিখে ফিরছে বাংলাদেশ।

সারাবাংলা/জেএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন