বৃহস্পতিবার ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ২ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

জলবায়ু পরিবর্তন: সমুদ্র তীরবর্তী শহরগুলো বন্যায় প্লাবিত হবে

সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯ | ৬:৪২ অপরাহ্ণ

পরিবেশ ও জলবায়ু ডেস্ক

অতীতের ধারণার চেয়ে দ্রুত সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে বলে ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (আইপিসিসি)-এর সর্বশেষ প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয়েছে। বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে দ্রুত গলছে হিমালয় ও অ্যান্টার্কটিকার হিমবাহ। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্রগুলো। খুব দ্রুতই সমুদ্র তীরবর্তী বিশ্বের অনেক শহর নিয়মিত বন্যায় প্লাবিত হতে পারে বলে প্রতিবেদনে আশঙ্কা জানানো হয়েছে। খবর সিএনএনের।

বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে বিশ্বের ৩৬টি দেশের ১০০ জনেরও বেশি বিজ্ঞানী এই রিপোর্ট তৈরিতে কাজ করেছেন।

আইপিসিসির ভাইস চেয়ারম্যান কো বেরেট বলেন, এই প্রতিবেদনটি স্বতন্ত্র। কারণ এবারই প্রথম জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে আনা হয়েছে। হিমালয়ের সর্বোচ্চ চূড়া থেকে সমুদ্রের তলদেশ পর্যন্ত সব জায়গাতেই পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানো হয়েছে। মানবসৃষ্ট জলবায়ু পরিবর্তনের ইস্যুগুলো এ ধরনের জায়গায় স্পষ্ট।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞানীরা বলেছেন, একটা পর্যায় পর্যন্ত সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি আর আটকে রাখা যাবে না। তবে চূড়ান্ত কোনো সম্ভাবনা জানাতে সক্ষম হননি বিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, অনেকটা ক্ষয়ক্ষতি হলেও মানুষের একটা সুযোগ থাকবে।

গ্রিনল্যান্ডের হিমবাহ ২০০৬ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রতিবছর গড়ে ২৭৫ গিগাটন বরফ হারিয়েছে। অ্যান্টার্কটিকার বরফ গলে চললে ও কার্বন নিঃসরণ বাড়লে ২১০০ সাল নাগাদ সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়বে ৩ ফুট পর্যন্ত।

অ্যান্টার্কটিকার বরফ ধারণাতীত বেশি না গললেও বিশ্বের যে ৬৮০ মিলিয়নের বেশি মানুষ সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলে বাস করছে তারা প্রতিবছর বন্যায় আক্রান্ত হবে ২০৫০ সাল নাগাদ। যা পূর্বে শতাব্দীতে একবারই ঘটত।

সারাবাংলা/এনএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন