বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ফুটেজের জন্য পুলিশদের অবরুদ্ধ করা হলো কেন, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর ৯, ২০১৯ | ৫:০৮ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার পর ওই ঘটনার আলামত হিসেবে জব্দ সিসিটিভি ফুটেজের দাবিতে পুলিশকে শেরে বাংলা হলে আড়াই ঘণ্টা ধরে অবরুদ্ধ রাখা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, সেই সময় তাদের ঘেরাও করা হলো। পুলিশকে আটকে তিন ঘণ্টা সময় কেন নষ্ট করা হলো? কারা পুলিশকে অবরুদ্ধ করেছে? যারা ওই হত্যায় জড়িত, চিহ্নিত হওয়ার ভয়ে তারাই কি পুলিশকে অবরুদ্ধ করেছে?

আরও পড়ুন- ‘ভাসানচরের একপাশে রোহিঙ্গা, একপাশে ক্যাসিনোর ব্যবস্থা করে দেবো!’

বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

শেখ হাসিনা বলেন, অপরাধী যারা তারা অপরাধীই। অপরাধী কে কোন দলের, সেটা আমি কখনো দেখি না। খুব সকাল বেলা যখন খবর পেলাম (আবরারের হত্যা), সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে বলেছি অপরাধীদের গ্রেফতার করতে, আলামত সংরক্ষণ করতে। যেকোনো অপরাধের ক্ষেত্রে আলামত সংরক্ষণ একান্ত প্রয়োজন। সেজন্য সিসিটিভি ফুটেজও সংগ্রহ করতে বলেছি। পুলিশও তাৎক্ষণিকভাবে পৌঁছে গেছে। সিসিটিভি ফুটেজও সংগ্রহ করে। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলো— যখন পুলিশ ওই সিসিটিভি ফুটেজ হার্ডডিস্কে নিয়ে এসেছে, তাদের ঘেরাও করা হলো। তাদের এই ফুটেজ নিয়ে আসতে দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন- ‘ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করব কেন, কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে করবে’

শেখ হাসিনা বলেন, আইজিপি (পুলিশের মহাপরিচালক) নিজে আসলেন। বললেন, পুলিশ কর্মকর্তাদের আটকে রেখেছে, আসতে দিচ্ছে না। স্বাভাবিকভাবেই আমার মনে প্রশ্ন জাগলো, ব্যাপারটা কী? কেন তারা ফুটেজ নিতে দেবে না? তারা বলছে, পুলিশ নাকি সিসিটিভি ফুটেজ নষ্ট করে দেবে। পুলিশ তো সেখানে গেছে আলামত সংগ্রহ করতে। ডেড বডির পোস্টমর্টেম, ফরেনসিক— সবকিছুর ব্যবস্থা তো আমরাই করে দিয়েছি। ছাত্ররা দাবি তোলার আগেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কে কোন রুমে ছিল, তাদের সবাইকে অ্যারেস্ট করতে বলেছি, পুলিশ অ্যারেস্ট করেছে। আমার প্রশ্ন, পুলিশকে কেন তারা আলমত নিতে দেবে না?

আরও পড়ুন- ‘মানুষের ভালো-মন্দ দেখার দায়িত্ব আমার, এ নিয়ে প্রশ্ন কেন?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আইজিপিকে বললাম, যারা ঘটনা ঘটিয়েছে (আবরার হত্যা) তারাও আছে কি না ওই দলে (যারা পুলিশকে অবরুদ্ধ করেছে)? ফুটেজ পুলিশের হাতে পৌঁছালে তারা হাতেনাতে ধরা পড়ে যেতে পারে, তাই তারাই কি পুলিশকে ফুটেজ না দেওয়ার তালে সুর মিলিয়েছে?

তিনি আরও বলেন, পরে একটি কপি (ফুটেজের কপি) কর্তৃপক্ষকে দিয়ে পুলিশ ফুটেজ নিয়ে আসে। সেই ফুটেজ দেখে শনাক্ত করার দরকার ছিল, কারা হত্যাকারী। কে ছাত্রলীগ, কে ছাত্রদল— এগুলো বিবেচনা করিনি। অন্যায়ভাবে একটি ২১ বছরের বাচ্চা ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করা হলো, আমি শুধু এ ঘটনায় অপরাধীদের ধরতে বলেছি দলমত নির্বিশেষে।

আরও পড়ুন-

‘দেশের স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে এটি হতে পারে না’

‘কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করতে পারে’

জাতিসংঘ অধিবেশন ও ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

‘নগণ্য পরিমাণ পানি দিচ্ছি, এটা নিয়ে কেন এত চিৎকার আমি জানি না’

সারাবাংলা/এটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন