সোমবার ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বুয়েটে রাজনীতি নিষিদ্ধ, ১৯ আসামি বহিষ্কার

অক্টোবর ১১, ২০১৯ | ৬:০৬ অপরাহ্ণ

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েটে) সব ধরনের সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম। নিজ ক্ষমতাবলে ভিসি শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বিকেলে এই ঘোষণা দেন।

বিজ্ঞাপন

সংলাপে ভিসি বলেন, ‘সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠনের কমিটি বিলুপ্তি করতে বলা হয়েছে। এখন ভয় পাওয়ার কিছু নেই, সবাই সাধারণ ছাত্র। যদি কেউ গোপনে ছাত্র রাজনীতি করে তাহলে বোর্ড অব ডিসিপ্লিনের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান করা হবে।’

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার বেলা সাড়ে ৫টায় সময় বুয়েট অডিটোরিয়ামে এই সংলাপ শুরু হয়। আবরারের খুনিদের ফাঁসিসহ শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবি নিয়ে শুধু বুয়েটের বর্তমান শিক্ষার্থীদের (১৫ তম, ১৬ তম, ১৭ তম ও ১৮ তম ব্যাচ) উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেন।

প্রথমে গণমাধ্যমের সামনে আলোচনা করতে রাজি না হলেও অনেক আলোচনা ও আন্দোলনের পর গণমাধ্যমের সামনে আলোচনা করতে রাজি হন উপাচার্য। তবে, আলোচনা সভা সরাসরি সম্প্রচার না করার শর্ত জুড়ে দেন উপাচার্য।

উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করতে বুয়েটের বর্তমান শিক্ষার্থী ও গণমাধ্যমকর্মী ছাড়া বহিরাগত ও অন্যদের প্রবেশ রুখতে বুয়েট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনের গেইটে বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে তালা দেয় শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র দেখে প্রবেশ নিশ্চিত করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এর আগে গত কয়েকদিন ধরে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করার চেষ্টা করেও আলোচনা করতে পারেননি শিক্ষার্থীরা। তবে, উপাচার্য গণমাধ্যম ছাড়া শিক্ষার্থীদের পক্ষে কয়েকজন প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনা করতে রাজি হলেও শিক্ষার্থী রাজি হননি।

পরে গতকাল বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমের সামনে সকল বর্তমান শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দেখা করে আলোচনা করার জন্য শুক্রবার দুপুর দুইটা পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। অনেক আলোচনার পর আজ বিকেলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তাদের শর্ত মোতাবেক আলোচনায় বসেছেন উপাচার্য। তাই, উপাচার্যকে সম্মান প্রদর্শনার্থে শিক্ষার্থীরা তাদের আল্টিমেটাম বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বাড়ায়।

প্রসঙ্গত, আবরার হত্যার দ্বিতীয় দিন গত ০৮ অক্টোবর উপাচার্য তার কার্যালয়ে এসে ডিন ও বিভাগীয় প্রধানদের সঙ্গে একটি গোপন বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা না করেই চলে যেতে চাইলে তাকে কয়েক ঘণ্টা তাকে কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখেন শিক্ষার্থীরা। তবে মাঝে একবার বেরিয়ে এসেও শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ না করায় এবং শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করতে না পারায় পুনরায় তাকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিল শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন

আবরার হত্যা: জিয়নের দোষ স্বীকার, মিজান কারাগারে
আবরার হত্যা: অমিত সাহা ও তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে
‘বুয়েট প্রশাসন আরেকটু কেয়ারফুল থাকলে আবরার হত্যা নাও ঘটতে পারত’
আবরার হত্যা মামলার আরেক আসামি মাজেদুল গ্রেফতার
আবরার হত্যায় স্বীকারোক্তি দিলেন ছাত্রলীগ নেতা সকাল
আবরার হত্যার ঘটনা পুঁজি করে মাঠে নেমেছে ছাত্রশিবির
আবরার হত্যা বাক স্বাধীনতার ওপর নিষ্ঠুরতম আঘাত: টিআইবি
আবরারকে মারা হচ্ছে জানলে প্রশাসনের অনুমতির অপেক্ষা করতো না পুলিশ
আবরার হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে: আইনমন্ত্রী
আবরার হত্যা: পলাতক আসামি তোহা গ্রেফতার
‘আবরার হত্যা মামলার চার্জশিট শিগগিরই’
আবরারের রুমমেট মিজান আটক
আবরার হত্যা: অমিত সাহা আটক
২০১১ নয় ২০০৫ নম্বর রুমে মারা যান আবরার, হত্যায় জড়িত ২২ জন

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/কেকে/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন