সোমবার ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

মৌসুমী বায়ুর বিদায়বেলা, লঘুচাপ ঝরাতে পারে বৃষ্টি

অক্টোবর ১২, ২০১৯ | ৪:২৭ পূর্বাহ্ণ

সারাবাংলা ডেস্ক

ঢাকা: আশ্বিন মাস শেষ হয়ে এলেও প্রকৃতিতে বর্ষার মেজাজ পুরোদমে। আবহাওয়া দফতর বলছে, এখনই বৃষ্টির শেষ না। এই মাসে বঙ্গোপসাগরে দু’টি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। যার মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে।

বিজ্ঞাপন

ইতোমধ্যে লঘুচাপের বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর প্রভাবে শনিবার (১২ অক্টোবর) চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি এবং বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। তবে দক্ষিণাঞ্চলে মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়া দফতর আরও বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ বাংলাদেশ থেকে বিদায় নেওয়ার অনুকূল পরিবেশ রয়েছে।

অন্যদিকে বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চলের ওপর দিয়ে দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে। যে কারণে এসব এলাকায় নদী বন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক এবং বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন আহমেদ বলেন, অক্টোবর মাসে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হতে পারে। এই মাসে বঙ্গোপসাগরে দু’টি নিম্নচাপ সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। যার মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ (বর্ষা) বাংলাদেশ থেকে বিদায় নেবে।

যেমন ছিল সেপ্টেম্বর

বিশেষজ্ঞ কমিটি জানাচ্ছে, সেপ্টেম্বরে সারাদেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল স্বাভাবিক। তবে ঢাকা, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়েছে।

গত ২ সেপ্টেম্বর উত্তর বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হয়। ৯ সেপ্টেম্বরের পরে লঘুচাপটি ভারতের মধ্যপ্রদেশের গিয়ে দুর্বল হয় এবং মৌসুমী অক্ষে মিলিয়ে যায়। মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ৮ থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম বিভাগে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হয়। এতে চট্টগ্রাম অঞ্চলের কোথাও কোথাও ভূমিধস হয়। এই সময় দৈনিক সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় টেকনাফে, ২৮৫ মিমি।

মৌসুমী বায়ু কম সক্রিয় থাকায় ১ সেপ্টেম্বর ও ১৮ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর সিলেট, রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের কোথাও কোথাও মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। এই সময় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় সিলেটে, ৩৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এটি

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন