মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

প্রতিদিন নয় ফুলকপি, পালং শাক বা ফলের রস

অক্টোবর ২৩, ২০১৯ | ১০:০০ পূর্বাহ্ণ

লাইফস্টাইল ডেস্ক

বার্গার, পিজ্জা, চিপস, কোমল পানীয়ের মতো কিছু খাবার প্রতিদিন খাওয়া যাবে না এমন কথা চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদরা নিয়মিত বলেন। এগুলোর পাশাপাশি আরও কিছু খাবার আছে যেগুলো নিয়মিত খাওয়া ঠিক নয়। আসুন দেখে নেই খাবারগুলো কী।

বিজ্ঞাপন

লবণ
শরীরের জন্য সোডিয়াম উপকারী হলেও সুস্থতার জন্য লবণ খেতে হবে মেপে। অতিরিক্ত সোডিয়াম ক্লোরাইড অর্থাৎ লবণ উচ্চ রক্তচাপ, কিডনির রোগ, হৃদরোগ, অস্টোপরোসিসসহ হতে পারে পেটের ক্যানসার।

আমরা যেসব খাবার খাই সেগুলোতে এমনিতেই সোডিয়াম থাকে। তাই লবণের মাধ্যমে অতিরিক্ত সোডিয়াম গ্রহণ না করাই ভালো।

ফলের রস
বাজার থেকে কেনা কেমিক্যালযুক্ত ফলের রস পাওয়া যায়, তেমনি নিজেরা ঘরে তাজা ফলের রস বানিয়েও খান অনেকে। শুধু বাজার থেকে কেনা ফলের রসই নয়, ঘরে বানানোটাও প্রতিদিন খাওয়া ঠিক নয়। বাজার থেকে কেনা ফলের রসে প্রচুর পরিমাণ চিনি, কৃত্রিম রঙ ও গন্ধ ছাড়াও প্রচুর পরিমাণ ক্যালরি থাকে। ফলে যেকোন কোমল পানীয়ের মতোই অস্বাস্থ্যকর এটি।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে তাজা ফলের রস করে ফলের খাদ্যআঁশ ফেলে দেই আমরা। ফলের খাদ্যআঁশ শুধু পেটই ভরায় না, অন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্যও ভালো। তাই মাঝেমধ্যে ফলের রস খেলেও প্রতিদিন চেষ্টা করুন আস্ত ফল খেতে।

শুকনো ফল
পুষ্টিগুণের জন্য শুকনো ফলকে বলা হয় সুপার ফুড। কিন্তু শুকনো খেজুর, অ্যাপ্রিকট, ফিগ, আঙুর (কিশমিশ), ইত্যাদি সুপার ফুড হলেও এগুলোতে চিনি ও ক্যালরিও থাকে প্রচুর। অনেকেই ব্যায়ামের আগে দ্রুত পুষ্টির জন্য খাওয়া গেলেও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে বা প্রতিদিন খাওয়া ঠিক নয়।

ক্রুসিফেরাস সবজি
ক্রুসিফেরাস সবজি যেমন, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পালং শাক, কেইল, ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণ পুষ্টিগুণের পাশাপাশি থাইওসিওনেট রয়েছে। এই উপাদানটি খাবারের আয়োডিন হজম করতে বাঁধা দেয়। আয়োডিনের অভাবে হাইপোথাইরয়েডিজম হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এই শাকসবজিগুলো রাখার ব্যপারে সচেতন থাকুন।

ক্যানে সংরক্ষিত খাবার
ক্যানে যেসব খাবার পাওয়া যায় সেগুলোতে প্রচুর পরিমাণ লবণ, চিনি ও কৃত্রিম রঙ ও গন্ধ যোগ করা থাকে। তাই ক্যানড খাবার (অলিভ, সবজি, ফল) ব্যস্ত জীবনে সহজ সমাধান হলেও প্রতিদিন খেলে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ক্যানে সংরক্ষিত খাবারের চেয়ে ফ্রোজেন খাবার অনেকটাই স্বাস্থ্যকর।

বেক করা খাবার
বেক করা খাবার কেক কিংবা বিস্কিট খেতে মজার হলেও এগুলো আইসক্রিম বা মিল্ক চকলেটের মতোই অস্বাস্থ্যকর। কেক, ব্রাউনি, বিস্কিট কিংবা পাউরুটিতে প্রচুর পরিমাণ ময়দা, চিনি, তেল  থাকে যা প্রতিদিন খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়।

প্রাণীজ প্রোটিন
প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় প্রোটিন রাখা জরুরী হলেও প্রতিদিন প্রাণীজ প্রোটিন শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সপ্তাহে কয়েকদিন উদ্ভিজ্জ প্রোটিন খাওয়া যেতে পারে। এতে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যআঁশ পাওয়া যাবে। আবার এসব খাবারে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি অক্সিড্যান্টও পাওয়া যায়। খাদ্যআঁশ ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, ইনফ্ল্যামেশন ছাড়াও নানারকম সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করে।

 

সুস্থতার জন্য প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় শর্করা, প্রোটিন, আঁশসমৃদ্ধ খাবার, ভিটামিন সবই রাখুন তবে পরিমিত পরিমাণে। ভাত, রুটি ইত্যাদিতে শর্করার পরিমাণ অনেক বেশি থাকায় আলাদা করে চিনি খেলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। চিনি ছাড়াও লবণও শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তাই সুস্থ ও কর্মক্ষম জীবনযাপনের জন্য ক্যালরি মেপে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকা বানান। প্রয়োজনে পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরএফ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন