মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৮ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

দুইদিন পর থেকে ১০০ টাকার মধ্যে পেঁয়াজ বিক্রির আশ্বাস

নভেম্বর ৫, ২০১৯ | ৩:৫৮ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: দুইদিন পর থেকে ১০০ টাকার মধ্যে পেঁয়াজ বিক্রির আশ্বাস দিয়েছেন চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের আড়তদাররা।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক সভায় এ আশ্বাস দিয়েছেন আড়তদারেরা। সভায় সার্বিক বিষয় মনিটরিংয়ের জন্য একটি তদারক সেল গঠনেরও সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব সেলিম হোসেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের চট্টগ্রামের উপ-পরিচালক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি এবং জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব সেলিম হোসেন বলেন, ‘আড়তদারেরা বলেছেন, ক্রেতা যাতে ১০০ টাকার মধ্যে পেঁয়াজ কিনতে পারেন, সেই ব্যবস্থা তারা করবেন। এক সপ্তাহের মধ্যে এস আলম ও মেঘনা গ্রুপ পেঁয়াজ নিয়ে আসবে। সংকট আর থাকবে না। এসব পেঁয়াজ আসলে ৬০-৭০ টাকায় হয়তো নেমে আসবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুই সপ্তাহের মধ্যে দেশি পেঁয়াজ উঠবে আর ভারতের পেঁয়াজও চলে আসবে। তখন দাম ৪০ টাকার নিচে নেমে যাবে। এ সময়ের মধ্যে বড় কোনো ব্যবসা করতে চাইলে তারা ক্ষতির মুখে পড়বেন।’

খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. ইদ্রিচ বলেন, ‘২-৩ দিন পরই আড়তদাররা ৮০-৮৫ টাকা প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি করবেন। আর ক্রেতারা খুচরা পর্যায়ে ১০০ টাকার মধ্যে পেঁয়াজ কিনতে পারবেন।'

এর আগে সভায় পেঁয়াজের বাজারে ধারাবাহিক অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘যতদূর জানতে পেরেছি, এখন পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে ৩০ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। প্রতিকেজি ৪২ টাকায় কিনে বিক্রি করা হচ্ছে ৯৫ টাকায়। তাহলে কেজিতে বাড়তি বিক্রি হচ্ছে ৫৩ টাকা। শুধু আমদানিকারকরাই এভাবে ১৫৯ কোটি নিয়ে যাচ্ছে। এরপর খুচরায় আসতে আসতে এ অংক প্রায় ২১০ কোটি টাকা।'

কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের বিভাগীয় সভাপতি এস এম নাজের হোসাইন বলেন, ‘এই যে ২০০ কোটি টাকার বেশি, এ টাকা কার পকেটে গেল? এই টাকা তো সাধারণ ক্রেতার পকেট থেকে চলে গেল। এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ।’

সভায় পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানান, গত রোববার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত খাতুনগঞ্জে ২০০ টনের মতো পেঁয়াজ এসেছে। আরও ২০০ টনের মতো পেঁয়াজ আসছে। এসব পেঁয়াজ বাজারে এলে দাম ৮০ থেকে ৮৫ টাকা হবে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, ‘কমিটি গঠন করে মনিটর করা হবে- কত দামে কিনছেন আর কত দামে বিক্রি করছেন। আড়তে থাকা বেশি দামের যে পেঁয়াজ কালকের (বুধবার) মধ্যে বিক্রি শেষ করবেন। এর পরদিন থেকে দেখব কত দামে কিনছেন। ন্যায্য দামে বিক্রি করতে হবে। এডিসির নেতৃত্বে মনিটরি টিম করে দেওয়া হবে। প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করলে অভিযান চলবে।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/জেএএম

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন