বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

‘মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে’

নভেম্বর ৬, ২০১৯ | ৫:৩৬ পূর্বাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, ১৬ কোটি মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে। এছাড়াও শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় মা-বাবা, চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকেই আরও যত্নবান হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) বিএসএমএমইউর বি ব্লকের ডা. মিলন হলে শিশু ও বয়ঃসন্ধিকালে কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক সমিতি'র ১২তম বার্ষিক সম্মেলন ও সাধারণ সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

উপাচার্য বলেন, দেশের ১৬ কোটি মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও মানসিক স্বাস্থ্যগত সমস্যায় আক্রান্তদের জন্য চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হবে। সেজন্য প্রয়োজনীয় দক্ষ চিকিৎসক তৈরি, দক্ষ জনবল তৈরি ও প্রয়োজনীয় সংখ্যক কোর্স চালু করাও জরুরি। আর এমনটি না করা গেলে সামনের দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, শিশুদের বিভিন্ন সামাজিক কাজে উৎসাহিত করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রত্যেকের বাবা-মা যেনো তাদের নিরুৎসাহিত না করেন। শিশুদের মনের বিকাশ ও পরিশীলিত করে গড়ে তুলতে তাদের প্রতি আমাদের সকলকে আরও যত্নবান না হওয়ার বিকল্প নাই।

বিজ্ঞাপন

অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অটিস্টিক শিশু, সেরিব্রাল পালসিতে আক্রান্ত শিশু, নিউরোজিক্যাল ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত শিশু, প্রতিবন্ধিতার শিকার শিশু, মানসিক স্বাস্থ্যগত সমস্যায় আক্রান্ত শিশুদের বিষয়ে সবসময়েই অতিমানবিক দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করেন। আর তাই তিনি অত্যন্ত সচেতনতার সঙ্গে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করে আসছেন।

এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করণীয় সব কিছুই করা হবে বলেও জানান।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএসএমএমইউ’র উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার বলেন, মনোরোগবিদ্যা বিভাগ চিকিৎসা বিজ্ঞানের অন্যান্য বিষয়ের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। আমাদেরকে অবশ্যই শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি সমান গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। তাহলেই আমরা উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে পারবো। বয়োসন্ধিকালীন কিশোর কিশোরীদের চিকিৎসা ও কল্যাণের কথা চিন্তা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চাইল্ড এন্ড এডোলেসেন্ট মেন্টাল হেলথ উপর এমডি কোর্স চালু করা হয়েছে।

গুরুত্বপূর্ণ এই সম্মেলনে জানানো হয়, বর্তমানে বাংলাদেশের শিশুদের ১৩.৬ ও বড়দের ১৬.৮ শতাংশ মানুষ মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যায় আক্রান্ত।

সম্মেলনে অন্যান্য বক্তারা বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশে মনোরোগ বিদ্যা বিভাগের অন্তর্ভুক্ত কোর্স সম্পন্ন ছাড়া এমবিবিএস ডিগ্রী সম্পন্ন হয় না।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর চাইল্ড এন্ড এডোলেসেন্ট মেন্টাল হেলথ এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. ফারুক আলম। সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ডা মো. গোলাম রাব্বানী, অধ্যাপক ডা. মো. ওয়াজিউল আলম চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ এস আই মল্লিক, বিশিষ্ট লেখক ও চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল, অধ্যাপক ডা. ঝুনু শামসুন নাহার, বিএসএমএমইউ’র মনোরোগবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এমএমএ সালাউদ্দীন কাউসার, অধ্যাপক ডা. নাহিদ মাহজাবিন মোরর্শেদ, ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, ডা. সাদিয়া আফরিন, ডা. সিফাত ই সৈয়দ সহ অন্যান্য মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্রছাত্রী ও চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসবি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন