শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

‘অনুতপ্ত’ রাঙ্গাঁর দুঃখপ্রকাশ, বক্তব্য প্রত্যাহার করে বিবৃতি

নভেম্বর ১২, ২০১৯ | ১১:০৫ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে শহিদ নূর হোসেনকে নিয়ে দেওয়া বক্তব্যের কারণে নূর হোসেনের পরিবারের কাছে দুঃখপ্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ। এ বক্তব্যের কারণে তিনি ‘অনুতপ্ত’ উল্লেখ করে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন- মহাসচিব পদ হারাচ্ছেন রাঙ্গাঁ!

গত ১০ নভেম্বর বনানীতে জাপা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে ‘গণতন্ত্র দিবসে’র অনুষ্ঠানে নূর হোসেনকে ‘ইয়াবাখোর ও ফেনসিডিলখোর’ বলে অভিহিত করেন রাঙ্গাঁ। তার এ বক্তব্যে সমালোচনার ঝড় ওঠে। নূর হোসেনের মা ও তার পরিবারের সদস্যরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে জানান, তারা রাঙ্গাঁর বিরুদ্ধে মামলা করতে প্রস্তুত। বিভিন্ন মহল থেকে রাঙ্গাঁকে তার বক্তব্য প্রত্যাহারের আলটিমেটাম দেওয়া হয়। যুবলীগের পক্ষ থেকে তার কুশপুত্তলিকাও দাহ করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এসবের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার দুঃখপ্রকাশ করে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠান রাঙ্গাঁ। তাতে তিনি দাবি করেন, নূর হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে বিভিন্ন সংগঠনের বক্তব্যে জাপার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে গালাগাল করা হয় বলে কর্মীরা উত্তেজিত হন এবং এই উত্তেজনার বশেই তিনি ‘অযাচিত’ কিছু কথা বলে ফেলেছেন।

আরও পড়ুন- সংসদে রাঙ্গাঁকে তুলোধোনা

রাঙ্গাঁ বলেন, প্রতিবছর নূর হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে কয়েকটি সংগঠনের আলোচনা, বক্তব্য ও বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়। এমনকি তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালিও করা হয়। এর ফলে জাতীয় পার্টির কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কর্মীদের উত্তেজনার মধ্যে বক্তব্য দেওয়ার সময় অনিচ্ছাকৃতভাবে আমার মুখ থেকে নূর হোসেন সম্পর্কে কিছু অযাচিত কথা বেরিয়ে গেছে, যা নূর হোসেনের পরিবারের সদস্যদের মনে আঘাত করেছে। এর জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত ও অনুতপ্ত।

রাঙ্গাঁ তার বক্তব্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়ে বলেন, নূর হোসেনের পরিবারের প্রতি আমাদের প্রয়াত চেয়ারম্যান এরশাদও সমব্যাথী ছিলেন। অতএব অসতর্কভাবে বলে ফেলা আমার বক্তব্যে যে আঘাত লেগেছে, তার জন্য আমি নূর হোসেনের মায়ের কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করছি। একইসঙ্গে আমার যে বক্তব্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে, সেসব বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিচ্ছি।

এই বিবৃতির পর ‘আর কোনো ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ থাকবে না’ বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেন জাপা মহাসচিব।

আরও পড়ুন- রাঙ্গাঁর বক্তব্য ব্যক্তিগত, দলের নয়: সংসদে জাপা এমপি

এদিকে, বিবৃতিতে দিয়ে ক্ষমাপ্রার্থনা ও বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিলেও জাতীয় সংসদ অধিবেশনে তাকে তুলোধোনা করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ তার নিজের দলের সংসদ সদস্যরাই। তারা বলছেন, রাঙ্গাঁর এই বক্তব্য রীতিমতো ধৃষ্ঠতা। এর ফলে তিনি সংসদে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের পদে থাকার নৈতিক অধিকার হারিয়েছেন।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা বলেন, এ বক্তব্য তার একান্তই ব্যক্তিগত। দল এই বক্তব্যের দায় নেবে না। তবে এই বক্তব্যের কারণে জাতীয় পার্টিও লজ্জিত। জানা গেছে, দলের মহাসচিবের পদ থেকে রাঙ্গাঁকে অপসারণের পক্ষে মত দিয়েছেন দলের সিনিয়র নেতারা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন