সোমবার ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ভারতীয় ভুট্টাবীজে ‘প্রতারিত’ কৃষক— সংবাদ প্রকাশের পর তদন্ত দল

নভেম্বর ১৩, ২০১৯ | ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

চুয়াডাঙ্গা: নিম্নমানের ভুট্টার বীজে বাজার সয়লাব। এতে প্রতারিত হচ্ছেন কৃষকরা। বীজ বিক্রি করতে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলো জেলা-উপজেলা পর্যায়ে নিয়োগ দিয়েছে অবৈধ ডিলার। সরকারি অনুমোদন না থাকলেও বিভিন্ন দোকানির চাহিদা মোতাবেক ডিলাররা পৌঁছে দিচ্ছে ভুট্টা বীজ। আর এ সুযোগে পেট্রোকেম কোম্পানির ডিলাররাও পোকাধরা পাইওনিয়ার পি-৩৩৫৫ জাতের বীজ বাজারে ছেড়েছে। যা কিনে চরম ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষকরা। এ বিষয়ে সারাবাংলা ডট নেটে একটি সংবাদ প্রকাশের পর তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিড উইং।

বিজ্ঞাপন

ভারতীয় হাইব্রিড ভুট্টার বীজে ‘প্রতারিত’ কৃষক- এই শিরোনামে গত ১ নভেম্বর সারাবাংলা ডটনেটে সংবাদ প্রকাশ হয়। এরপর কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিড উইং থেকে এক চিঠির মাধ্যমে একটি তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়। চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটির সদস্যরা সোমবার (১১ নভেম্বর) ভুট্টাক্ষেত পরিদর্শন করেন।

চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক আলী হাসানকে প্রধান করে গঠিত ওই তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন কুষ্টিয়া বিএডিসির বীজ বিপণন কর্মকর্তা (উপ-পরিচালক) এ.কে.এম.কামরুজ্জামান শাহীন, সদর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা শারমিন আক্তার ও চুয়াডাঙ্গা বীজ প্রত্যয়ন কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম মিয়া।

প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি সোমবার পেট্রোকেমের বিক্রয় প্রতিনিধি সঞ্জীব কুমার, আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক আলমাস হোসেন খান ও কৃষিতত্ত্ববিদ সুলতান আলমকে নিয়ে কৃষকদের ভুট্টাক্ষেত পরিদর্শন করে। তবে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর গ্রামের একাধিক ভূট্টাচাষির অভিযোগ, তদন্তদলটি তাদের কাছে পেট্রোকেমের পাইওনিয়ার পি-৩৩৫৫ পোকাধরা বীজের বিষয়ে জানতে আসেননি।

বিজ্ঞাপন

পেট্রোকেমের বিক্রয় প্রতিনিধি সঞ্জীব কুমার বলেন, তদন্তদলের সঙ্গে আমরা ছিলাম, কিন্তু প্রতিবেদন তো আমরা দেব না। ওটা দেবে তারা। সেকারণে আমরা তদন্তদলের সঙ্গে থাকলেও কোনো সমস্যা নেই।

যাদের বিরুদ্ধে পোকাধরা ভুট্টাবীজ বিপণন করে কৃষকদের ঠকানোর অভিযোগ সেই পেট্রোকেমের বিরুদ্ধে তদন্ত করার বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত দলের প্রধান আলী হাসান বলেন, ‘তারা আমাদের সঙ্গে ছিল ঠিকই কিন্তু আমরা পেট্রোকেমের পাইওনিয়ার পি-৩৩৫৫ ভূট্টাবীজ বিপণন করতে দেব না। এই পোকাধরা বীজ বপন করে কৃষকদের পরবর্তী সময়ে কোনো সমস্যা হলে তার দায়িত্ব আমারা নিতে পারব না। সে কারণে সমস্যার আগেই আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।’ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে সেটাই উল্লেখ থাকবে বলেও জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আইই/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন