শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

১০০ ধাপ ওপরে থাকা ওমানকে থামাতে পারবে বাংলাদেশ?

নভেম্বর ১৩, ২০১৯ | ১১:২৮ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: পরিসংখ্যান, র‌্যাংকিং ও যোগ্যতা— তিন জায়গাতেই এগিয়ে আছে ওমান। বিশ্বকাপ ফুটবল বাছাইয়ে যোজন এগিয়ে থাকা ওমানের সঙ্গেই বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) রাতে নামতে চলেছে বাংলাদেশ। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে লাল-সবুজদের থেকে থেকে ১০০ ধাপ ওপরে থাকা ওমান শক্তিতেও যোজন যোজন এগিয়ে। বাছাইপর্বের দ্বিতীয় রাউন্ডেও দারুণ পারফরম্যান্স করে তাক লাগানো ওমানকে রুখে দেওয়াটা তাই বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হবে।

বিজ্ঞাপন

তাই শক্তির বিচারে প্রশ্ন আসে— ওমানকে থামাতে পারবে বাংলাদেশ?

আরও পড়ুন- ওমানকে রুখে দিতে পূর্ণ আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বলছে, দ্বিতীয় রাউন্ড অনায়াসেই পেরিয়ে যেতে পারে ওমান। আফগানিস্তানকে ৩-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে মাস্কট হান্টাররা। ভারতকে ঘরের মাঠে প্রথম ম্যাচে ২-১ ব্যবধানে হারিয়েছে তারা। কাতারের সঙ্গে ২-১ ব্যবধানে হারলেও শেয়ানে শেয়ানে লড়াই করেছে ওমান। পয়েন্ট টেবিলও তার প্রমাণ। তিন ম্যাচে ছয় পয়েন্ট নিয়ে ‘ই’ গ্রুপ টেবিলে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ওমান।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে পয়েন্ট টেবিলের একেবারে নিচে আছে বাংলাদেশ। গত তিন ম্যাচে মাত্র এক পয়েন্ট পেয়েছে জামাল ভূঁইয়ারা। সেটা ভারতের সঙ্গে। প্রথম দুই ম্যাচে যথাক্রমে আফগানিস্তানের কাছে ১-০ ও কাতারের কাছে ২-০ ব্যবধানে হারলেও শেষ ম্যাচে ভারতের মাটি থেকে ১-১ গোলের ড্র নিয়ে ফিরেছেন বাংলাদেশ।

এ তো গেল পরিসংখ্যান বা তথ্য। ঘরের মাঠে কাতারের সঙ্গে জামালদের লড়াকু মনোভাব আর সম্প্রতি ভারতের মাটিতে আত্মবিশ্বাসটা আশা জোগাচ্ছে বাংলাদেশকে।

তবে ম্যাচটা যে বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে কঠিন হতে চলেছে, সেটা স্বীকার করে নিয়েছে দলের কোচ জেমি ডে। তিনি বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ হতে চলেছে।’ সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের মনোবল আর কৌশলে ‘স্ট্রিক্ট’ থাকার কথা বলছেন জেমি, ‘আমরা সম্প্রতি যা করেছি, সেটার দিকেই পূর্ণ মনোযোগ দিতে হবে। কৌশল নিয়ে খুবই স্ট্রিক্ট থাকতে হবে।’

ওমানকে রুখতে রক্ষণাত্মক ভঙ্গির কৌশলটাতেই মনোযোগ দিতে হবে বাংলাদেশকে— সেটা ভালো করেই জানেন জেমি। তবে যে বিষয়টি আরও বেশি ভোগাবে তা হলো ‘সুযোগ নষ্ট করা’। আফগানিস্তান, ভারত ও কাতারের তিন ম্যাচে ২০টিরও বেশি গোলের সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ। সেগুলোর মাত্র একটিকে গোলে পরিণত করতে পেরেছে জামাল ভূঁইয়ারা। সেদিকেও অতিরিক্ত মনোযোগ দিতে হবে। কাউন্টার অ্যাটাকে আরও ধারালো না হলে ভুগতে হবে।

সুযোগ কাজে লাগাতে না পারলে ভুগতে হবে, সেটা ভালো করেই জানেন জামাল ভূঁইয়া নিজেও। সে কারণেই তিনি বলছেন, ‘তাদের হারাতে হলে আমাদের চান্সগুলো কাজে লাগাতে হবে। যে চান্সগুলো পাব, সেখান থেকে কাজে লাগাতে পারলে আমরা ভালো রেজাল্ট নিয়ে ফিরতে পারব।’

‘আমরা জানি ওমান একটি ভালো সংগঠিত দল। তাদের ভালো স্কোরার আছে, যারা স্কোর করতে পারে। আমাদের টার্গেট থাকবে তাদের থামানো। আমরা তাদের দুর্বলতা ও শক্তির জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করেছি। এই ম্যাচে আমাদের পূর্ণ আত্মবিশ্বাস নিয়ে মাঠে নামতে হবে,’— বলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক।

খাতা-কলমের হিসাব রেখে এখন মাঠে পারফরম্যান্সের পালা বাংলাদেশের। অ্যাওয়ে ম্যাচ সবসময় কঠিন পরীক্ষা হয়ে আসে। আরেকটি কঠিন ম্যাচ। এমন কঠিন সময়ে দলের কোচ ও অধিনায়ক ফুটবলারদের ম্যাচটি ‘এনজয়’ করার পরামর্শ দিয়ে চলেছেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জেএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন