সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

জিপি ও ইসলামী ব্যাংকের ২৫০ কোটি টাকার রিটার্ন দাখিল

নভেম্বর ১৪, ২০১৯ | ২:৩০ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দশম আয়কর মেলার প্রথম দিনে টেলিকম অপারেটর গ্রামীণফোন (জিপি) ১৫০ কোটি ও ইসলামী ব্যাংক ১০০ কোটি টাকার ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করেছে। এছাড়া মেলার প্রথম দিনিই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকেও ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করা হয়েছে আয়কর মেলায়। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তার নিজের পরিবারের সদস্যদের পক্ষ থেকে দাখিল করেছেন ৭ কোটি টাকার ট্যাক্স রিটার্ন। সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেনও ২৫ কোটি টাকার ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করেছেন।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাবে শুরু হয়েছে দশম আয়কর মেলা। সকাল থেকেই করদাতাদের জন্য মেলা প্রাঙ্গণ উন্মুক্ত থাকলেও দুপুর দেড়টায় আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী।

মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পরই শীর্ষ পাঁচ করদাতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আয়কর রিটার্ন দাখিল করা হয়। এসময় গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ফোলি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার কাছে ১৫০ টাকার আয়কর রিটার্ন দাখিল করেন। পরে ইসলামী ব্যাংকের প্রধান ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কায়সার আলী ব্যাংকটির ১০০ কোটি টাকার আয়কর রিটার্ন দাখিল করেন অর্থমন্ত্রী ও এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে।

বিজ্ঞাপন

এ সময় অর্থমন্ত্রী তার পরিবারের চার সদস্যের পক্ষ থেকে আয়কর রিটার্ন জমা দেন। তাদের সম্মিলিত ২১৩ কোটি টাকার সম্পদের বিপরীতে জমাকৃত আয়করের পরিমাণ সাত কোটি ছয় লাখ ৭৮ হাজার ৯৫৬ টাকা। পরে তিনি ও এনবিআর চেয়ারম্যান সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেনের কাছ থেকে ২৫ কোটি টাকার আয়কর রিটার্ন জমা নেন।

এদিকে, আয়কর মেলায় ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একজন প্রতিনিধি তার পক্ষ থেকে আয়কর রিটার্নের ফাইল জমা দেন অর্থমন্ত্রী ও এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে। তবে প্রধানমন্ত্রী কত টাকার আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন, সে তথ্য জানা যায়নি।

গ্রামীণফোন, ইসলামী ব্যাংক, অর্থমন্ত্রী ও সাবেক যোগাযোগমন্ত্রীর প্রত্যেকেই চেকের মাধ্যমে আয়কর জমা দিয়েছেন।

এনবিআরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, করদাতা নিজে চাইলে তবেই কেবল তার পরিশোধিত করের অঙ্ক প্রকাশ করার বিধান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিজে সে তথ্য উন্মুক্ত করার অনুমতি না দিলে তার রিটার্ন দাখিলের তথ্য জানানো যাবে না।

আয়কর রিটার্ন দাখিলের পর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, কর দেওয়া একটি আনন্দ ও উৎসবের বিষয়। আমরা সপরিবারে কর দিচ্ছি। আপনারা সবাইও এ উৎসবে সামিল হোন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জিএস/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন