সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ইন্দোরে উজ্জ্বল মুশি; ছাড়িয়ে গেলেন আশরাফুলকে

নভেম্বর ১৬, ২০১৯ | ২:৪৫ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। আর তাই তো একটি দিনও খেলা হয়নি ব্যাটসম্যানদের। বাংলাদেশ না পারলেও ভারত ঠিকই গড়েছে রানের পাহাড়। আর প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা আবারও ব্যর্থ প্রথম ইনিংসের মতোই, নিয়মিত আসা যাওয়ায় ইনিংস ব্যবধানে পরাজয়ের আশঙ্কার সামনে টাইগার শিবির। ব্যাটসম্যানদের এমন অবস্থায় দলের হাল ধরেন মি: ডিপেন্ডেবল মুশফিক। উইকেটের এক প্রান্ত আগলে রেখে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২০ তম অর্ধশতক। আর সেই সঙ্গে দলের বিপর্যয় সামাল দেন কিছুটা হলেও।

বিজ্ঞাপন

যদিও ব্যাক্তিগত চার রানেই শেষ হয়ে যেতে বসেছিল মুশফিকের ইনিংস। মোহাম্মদ সামির বলে সেকেন্ড স্লিপে রোহিত শর্মার হাতে ক্যাচ তুলে দেন মুশফিক। তবে সহজ ক্যাচটি তালুবন্দি করতে পারেননি রোহিত। আর এতেই দ্বিতীয় জীবন পান টাইগার এই ব্যাটসম্যান। আর এরপরই থিতু হয়ে বসেন উইকেটে।

এরপর ১০১ বল খেলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২০তম অর্ধশতক। মুশির এই অর্ধশতক ইন্দোরে চলমান টেস্টে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ১ম ফিফটি। এই অর্ধশক মুশফিক সাজিয়েছেন ৬টি বাউন্ডারি দিয়ে। কেবল ইন্দোর টেস্টেই নয়; ভারতের বিপক্ষে টেস্টে রান সংগ্রহের দিক দিয়েও মুশফিক ছাড়িয়ে গিয়েছেন অন্য সকল টাইগার ব্যাটসম্যানকে।

ভারতের বিপক্ষে সাদা পোশাকে মোহাম্মদ আশরাফুল করেছিলেন ৩৮৬ রান। যেখানে ১১ ইনিংসে ছিল একটি সেঞ্চুরি আর দুটি অর্ধশতক। ভারতের বিপক্ষে টেস্টে আশরাফুলের ব্যাটিং গড় ৪২.৮৮। আর আশরাফুলের থেকে এতদিন মুশি পিছিয়ে ছিলেন মাত্র ৫০ রানের ব্যবধানে। অর্থাৎ ভারতের বিপক্ষে টেস্টে মুশফিকের মোট রান ছিল ৩৩৬; ইন্দোর টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৪৩ রান করে সেই ব্যবধান কমিয়ে আনেন মাত্র ৪ রানে। আর দ্বিতীয় ইনিংসে এই রিপোর্ট লেখা অবধি ৫৭ রান করে ছাড়িয়ে গেছেন যেকোনো টাইগার ব্যাটসম্যানকেই।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশি কোনো ব্যাটসম্যান হিসেবে ভারতের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ব্যাটিং গড় মুশফিকের। ৫৬.১৬ গড়ে ইন্দোর টেস্টের আগে মুশি করেছিলেন ৩৩৭ রান। ভারতের বিপক্ষে তিনি খেলেছেন চারটি টেস্ট। সাত ইনিংসে ব্যাট করে দুটি সেঞ্চুরিও পেয়েছেন মুশি। ভারতের বিপক্ষেই তার গড়টা ৫০’র ওপরে।

টেস্ট ক্যারিয়ারে ৬৭ ম্যাচ খেলা এই মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানের নামের পাশে আছে ৬টি সেঞ্চুরি। তার মধ্যে ভারতের বিপক্ষেই দুটি। একটি করে সেঞ্চুরি করেছেন নিউজিল্যান্ড (১৫৯), শ্রীলঙ্কা (২০০), ওয়েস্ট ইন্ডিজ (১১৬) এবং জিম্বাবুয়ের (অপরাজিত ২১৯) বিপক্ষে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এনএ/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন