শনিবার ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৯ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ভেঙে গেল এলডিপি

নভেম্বর ১৮, ২০১৯ | ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আনুষ্ঠানিকভাবে ভেঙে গেল কর্নেল (অব.) অলি আহমদ-এর নেতৃত্বাধীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)। এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নেত্রকোনা থেকে নির্বাচিত চারবারের সংসদ সদস্য ও সাবেক হুইপ আবদুল করিম আব্বাসীকে সভাপতি করে সাত সদস্যের নতুন এলডিপির আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে সদস্য সচিব করা হয়েছে এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১৮ নভেম্বর) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সাত সদস্যের নতুন এলডিপির গঠনের ঘোষণা দেন দলটির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম। এ সময় দলের অনেক নেতাকর্মী সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে সেলিম বলেন, কর্নেল অলি আহমদ এর প্রতি অনাস্থা দিয়ে আমরা আলাদা লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) গঠন করছি। শিগগিরই বর্ধিত সভা করে দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে।

এদিকে সাত সদস্যের নতুন এলডিপির আহবায়ক কমিটির সদস্যরা হলেন, মেহেরপুর থেকে নির্বাচিত তিনবারের সাংসদ সদস্য ও এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুল গনি, এলডিপির সাংগঠনিক সম্পাদক এমএ বাশার, সৈয়দ ইব্রাহিম রওনক, তৌহিদ আনোয়ার, এলডিপির দফতর সম্পাদক কাজি মতিউর রহমান।

এদিকে সংবাদ সম্মেলনে শাহাদত হোসেন সেলিম বলেন, আগামীতে বর্ধিত সভা করে এলডিপির পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। নতুন এলডিপি ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে থাকবে বলেও তিনি জানান। তিনি বলেন, এলডিপি হিসাবে ২০ দলীয় জোট আমাদের স্বীকৃতি দিবে বলে আমরা আশা করছি।

বিজ্ঞাপন

শাহাদত হোসেন সেলিম বলেন, সম্প্রতি সম্পূর্ণ অগঠনতান্ত্রিকভাবে দলের নির্বাহী কমিটি থেকে আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। অথচ আমি এলডিপি‘র প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম। একইসঙ্গে তিনি সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিকভাবে দল পরিচালনা করছেন। সম্প্রতি তার আচরণে আমাদের সাথে দ্বিমত সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে তিনি বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, নেতৃত্বকে খাটো করেছেন অথচ তিনি বিএনপির নেতৃতাধীন জোটে রয়েছেন। শুধু তাই নয় দলীয় ফোরামে কিংবা দলের প্রেসিডিয়ামের সভা না ডেকে কোনো ধরনের আলোচনা ছাড়াই কেন্দ্রীয় কমিটি পূনর্গঠন করেছেন।

সেলিম বলেন, এলডিপি প্রতিষ্ঠাকালীন দলটিতে ৩২ জন সাবেক সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু অলি আহমদ এর অগণতান্ত্রিক আচরণের কারণে তারা সবাই একে একে এলডিপি ছেড়ে চলে গেছেন। বর্তমানে দলের মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমদ ছাড়া দলটির প্রতিষ্ঠাকালীন কোনো সিনিয়র নেতা দলে নেই।

তিনি আরো বলেন, অলির নেতৃত্বাধীন মুক্তিমঞ্চ নামে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আলাদা প্লাটফরম বলা হলেও বর্তমানে এটি জিয়া পরিবার ও বিএনপির বিষোদাগার প্লাটফরমে পরিণত হয়েছে। এইসব কারণে আমরা কর্নেল অলি আহমদ এর প্রতি অনাস্থা দিয়ে আলাদা এলডিপি গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জিএস/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন