সোমবার ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

রাজস্ব নয়, শৃঙ্খলার জন্যই সড়ক আইন: আতিকুল

নভেম্বর ১৮, ২০১৯ | ২:৪৭ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সড়ক আইন-২০১৮ এর উদ্দেশ্য রাজস্ব আদায় নয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘মানুষ যেন আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয় এবং আইন মেনে চলে সেজন্যই শাস্তি এবং জরিমানা বাড়িয়ে নতুন আইন করা হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর আসাদ এভিনিউ গ্রীন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর সামনে স্থাপিত ডিজিটাল পুশ বাটন পর্যবেক্ষণ এবং ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রমে এসে এসব কথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে গাড়ির চালক এবং পথচারীদের বিভিন্ন ট্রাফিক নির্দেশনামূলক লিফলেট বিতরণ এবং আইন মানতে নানা দিক নির্দেশনা দেন।

মেয়র বলেন, সারা বিশ্বেই কঠোরভাবে আইন মানা হয়। সবখানেই আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রয়েছে। এর মূল কারণ আইন অমান্য করলে কঠিন শাস্তি এবং বড় অঙ্কের জরিমানা গুনতে হয়।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় কেউ আইন ভঙ্গ করে না। সেখানে আইন ভঙ্গ করলে বড় ধরনের জরিমানা ও শাস্তি পেতে হয়। কিন্তু ওই একই চালক ক্যান্টনমেন্টের বাইরে আসলে আইন অমান্য করে‌। ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় এক ধরনের আচরণ এবং বাইরে আরেক ধরনের আচরণ হতে পারে না। তাই এর জন্য সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যাপকভাবে সচেতনতা বাড়াতে হবে। শিক্ষার্থী এবং তার অভিভাবকদের সচেতন করতে হবে তা না হলে ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট হবে না।’

সচেতনতামূলক কার্যক্রম শেষে মেয়র গ্রীন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আলোচনায় তিনি সিদ্ধান্ত দেন স্কুলের সামনে বসানো ডিজিটাল পুশ বাটন ব্যবস্থাপনার জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, ট্রাফিক এবং স্কুলের পক্ষ থেকে দুই শিফটে ১৪ জন দায়িত্ব পালন করবেন‌‌।

এ সময় তিনি শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে হলে আমাদের এই বিষয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিতে হবে। একসময় আমাদের দেশে সিনেমার জন্য কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না। যখন এর উন্নতি হচ্ছে তখন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিষয়ে কোর্স চালু করেছে। আমাদের দেশে এখন ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা চালু করতে হবে।

এ সময় গ্রীন হেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পার্কিংয়ের গাড়িগুলো অন্যত্র সরিয়ে রাখার ব্যাপারে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেন মেয়র। পরে তিনি সিদ্ধান্ত নেন আগামী জানুয়ারির ১ তারিখ থেকে অবৈধভাবে রাস্তা পারাপার হলে জরিমানা করা হবে। সেই সঙ্গে স্কুলের সামনে ব্যক্তিগত গাড়ি রাখতে দেওয়া হবেনা এবং স্কুল বাসের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএইচ/জেএএম

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন