শনিবার ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

শিল্পকলায় আইডিএলসি’র ৫দিনব্যাপী নাট্য উৎসব

নভেম্বর ১৯, ২০১৯ | ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট

মঞ্চনাটক শুধু বিনোদনের মাধ্যম নয়, বরং চিরতরুণ মনের নানা রঙে সাজানো সমাজ ও সভ্যতার এক বাস্তব প্রতিচ্ছবি। এমন উপলব্ধি থেকে বাংলাদেশের মঞ্চনাটকে তরুণদের সম্পৃক্ত করে নতুন প্রাণসঞ্চারের লক্ষ্যে দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ দিনব্যাপী নাট্য উৎসব আয়োজন করেছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড।

বিজ্ঞাপন

‘তারুণ্যের জয়গানে আসুন আনন্দ মঞ্চে’— এই স্লোগানে দেশের নাট্যশিল্পের জনপ্রিয় ও অন্যতম সৃজনশীল মাধ্যম মঞ্চনাটকের অগ্রযাত্রাকে আরও বিকশিত করার লক্ষ্যে আজ মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) শুরু হচ্ছে এই আয়োজন। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে মঞ্চনাটকের উৎসবটি চলবে ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত।

এবারের নাট্যোৎসবে অংশ নিচ্ছে দেশের স্বনামধন্য ও শীর্ষ স্থানীয় ১০টি নাট্যদল— ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যদল, নাট্যচক্র, তাড়ুয়া, ঢাকা পদাতিক নাট্য সংসদ, শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্র, সময় নাট্যদল, ঢাকা থিয়েটার, আরশী নগর, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, থিয়েটার ও নাগরিক নাট্যাঙ্গন।

বিজ্ঞাপন

প্রথম দিন (১৯ নভেম্বর) বিকেল ৪টায় জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে এই আয়োজনের উদ্বোধন করবেন নাট্যজন সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর। এরপর রাত ৮টা ৩০ মিনিটে এই হলেই নাট্যচক্র পরিবেশন করবে তাদের জনপ্রিয় নাটক ‘ভদ্দরনোক’। একই দিন সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে এক্সপেরিমেন্টাল হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগ পরিবেশন করবে ‘রসপুরাণ’।

দ্বিতীয় দিন (২০ নভেম্বর) বিকেল ৫টায় এক্সপেরিমেন্টাল হলে পরিবেশিত হবে তাড়ুয়া’র ‘লেট মি আউট’ এবং সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে নাগরিক নাট্যাঙ্গনের ‘গহর বাদশা ও বানেছা পরী’।

তৃতীয় দিন (২১ নভেম্বর) বিকেল ৫টায় এক্সপেরিমেন্টাল হলে ঢাকা পদাতিক নাট্য সংসদের ‘পাইচো চোরের কিচ্ছা’ ও সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্রের ‘চম্পাবতী’ মঞ্চস্থ হবে।

চতুর্থ দিন (২২ নভেম্বর) বিকেল ৫টায় এক্সপেরিমেন্টাল হলে পরিবেশিত হবে সময় নাট্যদলের ‘ভাগের মানুষ’, সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে ঢাকা থিয়েটারের ‘ধাবমান’।

পঞ্চম ও শেষ দিন (২৩ নভেম্বর) বিকেল ৫টায় এক্সপেরিমেন্টাল হলে আরশী নগরের ‘রহু চণ্ডালের হাড়’ এবং রাত ৮টা ৩০ মিনিটে জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে থিয়েটারের ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’ পরিবেশিত হবে।

এদিনই জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে সন্ধ্যা ৭টায় থাকছে সমাপনী অনুষ্ঠান। এতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে ‘কৃতি সম্মাননা’। মূলত নাট্যমঞ্চের নেপথ্যে কলাকুশলীদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও দীর্ঘমেয়াদি অবদানের জন্য, বিশেষ করে আলোকসজ্জা, শব্দ-নিয়ন্ত্রণ, মঞ্চসজ্জা, মেকআপ ও পোশাক পরিকল্পনা বিভাগে এই সম্মাননা দেওয়া হবে।

আয়োজকদের প্রত্যাশা, এই আয়োজন মঞ্চনাটকের প্রতি তরুণ প্রজন্মকে উৎসাহিত করবে এবং এ দেশের মঞ্চনাটকে নিবেদিতপ্রাণ কর্মীদের আরও অনুপ্রাণিত করবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএসজি/

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন