বুধবার ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৩ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

৩০ বছর আগের সগিরা হত্যার তদন্তে আরও ৬০ দিন সময় পেল পিবিআই

নভেম্বর ২০, ২০১৯ | ১:৩৩ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: তিন দশক আগে ভিকারুননিসা নূন স্কুলের সামনে খুন হওয়া সগিরা মোর্শেদ সালাম হত্যার তদন্ত শেষ করতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) আরও ৬০ দিন সময় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২০ নভেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে পিবিআিইর পক্ষে সময় চেয়ে আবেদন করেন আইনজীবী সারওয়ার হোসেন বাপ্পি। পরে আদালত তাদেরকে আরও ৬০ দিন সময় দেন। এ সময়ের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে বলেন আদালত।

রাজধানী ভিকারুননিসা নূন স্কুলের সামনে ১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই বিকেলে সগিরা মোর্শেদকে গুলি করে হত্যা করা হয়। সেদিন রিকশায় করে যাওয়ার পথে সগিরার অলংকার ছিনতাইয়ের চেষ্টার সময় বাধা পেয়ে তাকে গুলি করে দুজন লোক।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু আসলে এটা ছিনতাই ছিল না, ছিল এক পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড- যার পেছনে ছিল পারিবারিক দ্বন্দ্ব।

দীর্ঘ ৩০ বছর পর এ ঘটনার পেছনে ঘটনা বেরিয়ে আসে চ্যানেল২৪ এর ‘আপনার আদালত‘-এর আলোচনার সূত্র ধরে।

ফাইলবন্দি থাকা মামলার বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হলে মামলার ওপর স্থগিতাদেশ তুলে নেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

অধিকতর তদন্তের জন্য গত ১১ জুলাই মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-কে দায়িত্ব দেন আদালত।
পরে পিবিআইয়ের তদন্তে সেটি আলোর মুখ দেখে।

পিবিআই এর জিজ্ঞাসাবাদের মুখে অবশেষে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন চার ব্যক্তি।

এরই মধ্যে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন নিহতের ভাসুর ডা. হাসান আলী চৌধুরী, তার স্ত্রী সায়েদাতুল মাহমুদা শাহীন, মিসেস শাহীনের ভাই আনাস মাহমুদ রেজওয়ান, মারুফ রেজা। তারা চারজনই এখন কারাগারে।

পারিবারিক প্রতিহিংসার শিকার হবার কারণেই গৃহবুধ সগিরাকে হত্যা করা হয়েছিল- জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডকে/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন