শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ওয়ারলেসে শুনতাম, ‘তোমার চাকরি খেয়ে ফেলবো’: জাবেদ পাটোয়ারি

নভেম্বর ২১, ২০১৯ | ৫:৫৮ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নতুন সড়ক আইন বাস্তবায়নে পুলিশ সদস্যরা যদি আইন মেনে কোনো গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়, অন্তত তার চাকরি যাবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারি। এছাড়া তিনি বলেন, ‘আমি যখন ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগে চাকরি করতাম, তখন ওয়ারলেসে শুনতাম—তোমার চাকরি খেয়ে ফেলবো। তোমাকে কালকেই খাগড়াছড়ি পাঠাচ্ছি। তুমি জানো—আমি কে? আমি অমুকের মামা, অমুকের ভাগনে। আমার দুলাভাই অমুক।’

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স অডিটরিয়ামে আয়োজিত ট্রাফিক সচেতনতা পক্ষ উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জাবেদ পাটোয়ারি আরও বলেন, ‘ওই সময়টায় অনেক পুলিশ কর্মকর্তা অসহায় বোধ করতো। তবে এখন কথা দিচ্ছি, অন্তত কারও চাকরি যাবে না। কারও শাস্তিমূলক বদলি হবে না। কিন্তু আইন সঠিকভাবে মেনে প্রয়োগ করতে হবে।’

আমাদের প্রত্যেকের সচেতনতা দরকার, তাহলেই সড়ক নিরাপদ হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই শুধু ঢাকা শহর নয়, পুরো দেশেই যাতে একটি প্রাণও না ঝরে যায়। আমাদের সেই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

বিজ্ঞাপন

জাবেদ পাটোয়ারি আরও বলেন, ‘ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কয়েকটি ধাপে কাজ করতে হয়। এর মধ্যে ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং, ট্রাফিক ইনভায়রনমেন্ট, ট্রাফিক এডুকেশন ও ট্রাফিক ইনফোর্সমেন্ট। পুলিশ কেবল ইনফোর্সমেন্টের একটি অংশ মাত্র। এর সঙ্গে সিটি করপোরেশন, রাজউক ও বিআরটিএসহ আরও অনেকে আছে। কিন্তু কোথাও কোনো সমস্যা তৈরি হলে শুধুমাত্র পুলিশকে দায়ী করা হয়ে থাকে।’

ওয়ারী বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (প্রশাসন) ইফতেখারুল ইসলামের সঞ্চালনায় আইজিপি আরও বলেন, ‘রাস্তায় নামলে আমরা কেউ মনে করি না যে, আইন ভাঙছি নাকি মানছি। উন্নত দেশের মত বাস বে না থাকলেও যাত্রী ওঠা নামার অন্তত একটা জায়গা আছে। স্টপেজ আছে। তবুও কেউ সেটি ব্যবহার করেন না। না চালক না যাত্রী। চালক একদিন যদি বাস স্টপেজে গাড়ি থামাত তাহলে যাত্রীরা অন্য কোথাও দাঁড়াত না। এমন হয়েছে যেন সবাই আইন না মানার সংস্কৃতিতে বিশ্বাসী হয়ে পড়েছে।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইউজে/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন