বিজ্ঞাপন

‘খেলছিল, ইনজেকশনের পর শিশুটি নিস্তেজ হয়ে পড়ে’

November 21, 2019 | 8:20 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম নগরীর বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে খিচুনি ও জ্বর নিয়ে ভর্তি হওয়া এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তার পরিবারের অভিযোগ, মৃত্যুর ঘণ্টাখানেক আগেও শিশুটি খেলা করছিল। একটি এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন শরীরে পুশ করার করা শিশুটি আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে যায় এবং একপর্যায়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। ভুল চিকিৎসায় শিশুটির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) সকালে জিহান সারোয়ার প্রিয় নামে এক বছর বয়সী এই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। জারিনের বাবা শামীম সারোয়ার ও মা মোহছেনা আক্তার ঝর্ণা।

প্রিয় ম্যানিনজাইটিস বা মস্তিস্কের প্রদাহজনিত রোগে আক্রান্ত ছিল। তার মামা সুমন শাহ জানিয়েছেন, খিচুনি ও জ্বরে আক্রান্ত প্রিয়কে গত ১৭ নভেম্বর ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক নেফ্রলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. সনৎ কুমার বড়ুয়ার অধীনে চিকিৎসাধীন ছিল।

বিজ্ঞাপন

সুমন শাহ সারাবাংলাকে বলেন, ‘প্রিয় ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে আসছিল। গত (বুধবার) রাতেও সে ভালো ছিল। সকালেও খেলা করেছে। টেস্ট রিপোর্টে ম্যানিনজাইটিস পজিটিভ আসার পর চিকিৎসক সনৎ কুমার বড়ুয়া তাকে এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন দেওয়ার জন্য প্রেসক্রাইব করেন। এরপর তাকে কেবিনে নেওয়ার কথা ছিল। ইনজেকশন দেওয়ার আধাঘণ্টা পর সে নিস্তেজ হয়ে পড়ে।’

শিশুটির হঠাৎ মৃত্যু কোনোভাবেই মানতে পারছেন না তার পরিবারের সদস্যরা। তার মা ব্যাংক কর্মকর্তা ও লেখিকা মোহছেনা আক্তার ঝর্ণা হাসপাতালে আর্তনাদ করতে থাকেন। তিনি কান্না করতে করতে বলেন, ‘আমার ছেলেটা সকালেও আমার বুকে খেলা করেছে। এন্টিবায়েটিকটা দেওয়ার পর সে সহ্য করতে পারেনি। আমার ভালো ছেলেটা মারা গেল।’

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চিকিৎসক সনৎ কুমার বড়ুয়া বলেন, ‘শিশুটিরি আগে থেকে জ্বর ছিল। এরপর খিঁচুনি হয়। ম্যানিনজাইটিসে আক্রান্ত ছিল। জ্বর কিছুটা কমে আসে। এরপর পরীক্ষায় এনকাফেলাইটিস পজেটিভ আসে। কার্বোসিড ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে। সেটার কোনো সাইডইফেক্ট নেই। হয়ত ইনজেকশন দেওয়ার সময়েই তার প্রদাহটা আবার শুরু হয়। এ কারণেই মৃত্যু হয়েছে।’

ম্যাক্স হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. লিয়াকত আলী সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমি ঘটনা শোনার পর নিজে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখেছি। চিকিৎসা যেটা হয়েছে একেবারে সঠিক চিকিৎসা। ম্যানিনজাইটিস রোগটাই এমন যে, কখনো একটু ইমপ্রুভ করবে, কখনো আবার একটু অসুস্থ হবে। ইনজেকশন দেওয়ার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে, এটি সঠিক নয়। তার পরিবারের সদস্যরাও আমাদের হাসপাতাল থেকে যাওয়ার সময় এমন দাবি করেননি। কোনো অভিযোগও করেননি।’

বিজ্ঞাপন

একবছর আগে একই হাসপাতালে জ্বর ও গলাব্যথা নিয়ে ভর্তি হওয়া সাংবাদিক রুবেল খানের শিশুকন্যা রাফিদা আক্তার রাইফা’র মৃত্যু হয়। তখন ভুল চিকিৎসার অভিযোগে ম্যাক্স হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও দায়ী চিকিৎসকদের বিচারের দাবিতে রাস্তায় নেমেছিলেন সাংবাদিকরা। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের টিম হাসপাতালে অভিযানও চালিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন