বুধবার ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৩ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

২৬ বুয়েট শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার

নভেম্বর ২২, ২০১৯ | ১:১২ পূর্বাহ্ণ

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলার চার্জশিটভুক্ত ২৫ আসামিসহ ২৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বুয়েট প্রশাসন। বুয়েটের আরও ছয় শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের অধ্যাপক মিজানুর রহমান খান সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পরে বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদফতর এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে।

আবরার হত্যায় জড়িতদের তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বহিষ্কার এবং চার্জশিটে নাম এলে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি ছিল বরার হত্যার পর বুয়েট শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলনে। সেই দাবি মেনে আন্দোলনের সময়ই এসব শিক্ষার্থীদের সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। পরে গত ১৩ নভেম্বর আদালতে আবরার হত্যা মামলার চার্জশিটে বুয়েটের ২৫ শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করা হয়। তাদের সবাইকেই আজীবনের জন্য বহিষ্কার করলো বুয়েট প্রশাসন।

২৬ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে বুয়েটের আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে সারাবাংলাকে বলেন, আমরা এখনো বিষয়টি অবগত হইনি। অবগত হলে বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করে আমাদের পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে জানানো হবে।

বিজ্ঞাপন

বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদফতরের সদস্য সচিবের (বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন) সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে (নং ডি. এস. ডব্লিউ/ডি-৩৪) বলা হয়, আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন ওই ঘটনায় অভিযুক্ত ২৬ জনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবনের জন্য (স্থায়ীভাবে) বহিষ্কার করেছে। এর মধ্যে ২৫জন পুলিশের অভিযোগপত্র অনুযায়ী অভিযুক্ত। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে আরও ছয় জনকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

আজীবন বহিষ্কৃত যে ২৬ শিক্ষার্থী

মেহেদী হাসান রবিন (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৫তম ব্যাচ), মো. অনীক সরকার (১৫তম ব্যাচ), ইফতি মোশাররফ সকাল (বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৬তম ব্যাচ), মো. মনিরুজ্জামান মনির (পানিসম্পদ, ১৬তম ব্যাচ), মো. মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৫তম ব্যাচ), মো. মোজাহিদুর রহমান (ইইই, ১৬তম ব্যাচ), মেহেদী হাসান রাসেল (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৩তম ব্যাচ), এহতেশামুল রাব্বী (তানীম) (সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), খন্দকার তাবাককারুল ইসলাম (তানভীর) (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৬তম ব্যাচ), মনতাসির আল জেমি (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, বিভাগ, ১৭ তম ব্যাচ), এ এস এম নাজমুস সাদাত (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), মো. শামীম বিল্লাহ (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), মোর্শেদ অমর্ত ইসলাম (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), হোসাইন মোহাম্মদ তোহা (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), মুজতবা রাফিদ (১৬তম ব্যাচ), মো. মিজানুর রহমান (১৬তম ব্যাচ), মো. আশিকুল ইসলাম (১৬তম), এস এম মাহমুদ (১৪তম ব্যাচ), ইশতিয়াক অহমেদ (মুন্না) (১৫তম ব্যাচ), অমিত সাহা (১৬তম ব্যাচ), মাজেদুর রহমান (এমএমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মো. শামসুল আরেফিন (১৭ তম ব্যাচ), মোয়াজ আবু হোরায়রা (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৭তম ব্যাচ), মো. আকাশ হোসেন (সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৬তম ব্যাচ), মো. মোর্শেদ-উজ-জামান মন্ডল (১৬তম), মুহতাসিম ফুয়াদ (সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৪তম ব্যাচ)।

 শাস্তিপ্রাপ্ত অন্যান্য ছয় শিক্ষার্থী

আবু নওশাদ সাকিব (১৭ তম ব্যাচ), মো. সাইফুল ইসলাম (১৭ তম ব্যাচ), মো. গালীব (১৭ তম ব্যাচ), মো. শাওন মিয়া (১৭ তম ব্যাচ), সাখাওয়াত ইকবাল অভি (১৭তম ব্যাচ) মো. ইসমাইল (১৬ ব্যাচ)।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তড়িৎকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন আবরার ফাহাদ। শেরে বাংলা হলের ১০১১ নম্বর রুমের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি। গত ৬ অক্টোবর রাতে তাকে রুম থেকে ডেকে নিয়ে যান বুয়েট ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। ওই হলেরই ২০১১ নম্বর রুমে নিয়ে তাকে বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার তথ্য জানিয়েছেন ছাত্রলীগের নেতারাই। পরে আর রুমে ফিরে আসেননি আবরার। ৭ অক্টোবর ভোর ৪টার দিকে তার নিথর দেহ পাওয়া যায় হলের সিঁড়ির নিচে। তার পুরো শরীরে ছিল আঘাতের চিহ্ন। সহপাঠীদের অভিযোগ, ছাত্রলীগের নেতারা পিটিয়ে মেরে ফেলেছেন আবরারকে।

সোমবার রাতে বুয়েটেই প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় আবরারের। জানাজা শেষে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কুষ্টিয়ার বাড়িতে। অপেক্ষমাণ স্বজনরা আবরারের মরদেহ পৌঁছালে কান্নায় ভেঙে পড়েন। মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজনসহ গ্রামবাসীর কান্নায় ভারী হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। পরে ৮ অক্টোবর সকাল ১০টার দিকে তৃতীয় জানাজা শেষে সাড়ে ১০টার দিকে গ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয় আবরারকে।

ছেলেকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেলসহ ১৯ জনের নামে চকবাজার থানায় ৭ অক্টোবর রাতেই মামলা দায়ের করেন আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ।

আরও পড়ুন-

ছাত্রলীগ নেতার রুমে জেরা, সিঁড়িতে লাশ

খাতায় অঙ্ক শেষ করতে পারেননি আবরার

আবরার হত্যায় সরাসরি অংশ নেয় যে ১১ জন

যেভাবে আবরার হত্যা, চার্জশিটে নৃশংসতার বর্ণনা

ছাত্রদের উচ্ছৃঙ্খলতার চরম বহিঃপ্রকাশ আবরার হত্যাকাণ্ড

ফুটেজ হস্তান্তর করে তবেই ‘ছাড়া পেলেন’ পুলিশ কর্মকর্তারা

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/কেকে/জেএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন