বৃহস্পতিবার ৩০ জানুয়ারি, ২০২০ ইং

ওশান ডান্সে আলোচনা ও সমসাময়িক নাচ

নভেম্বর ২৫, ২০১৯ | ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট

রবিবার (২৪ নভেম্বর) ছিল ওশান ডান্স ফেস্টিভ্যালের তৃতীয় দিন। সকালে মারমেইড ইকো রিসোর্টে ছিল উৎসবের আলোচনা পর্ব। ভারতের দীপশিখা ঘোষ কথা বলেন শান্তি নিকেতনের নৃত্যচর্চা নিয়ে। সেখানকার পরিবেশকে রবীন্দ্রনাথ কীভাবে নৃত্য উপযোগী করেছেন, সেই পরিবেশের ওপরে ভিত্তি করে কীভাবে নির্মিত হয়েছে রবীন্দ্র নৃত্য, এ নিয়েই ছিল তার বক্তব্য। তিনি বলেন, “রবীন্দ্রনৃত্যে প্রায় সব ঘরানার নাচই আছে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নাচকে কোনো ব্যাকরণের মধ্যে আটকে রাখতে চাননি। নাচকে জীবনের অনুষঙ্গ হিসেবে প্রতিষ্ঠা ও চর্চা করাতে চেয়েছেন।”

বিজ্ঞাপন

জুলিয়েট ও’ব্রিন কথা বলেন শরীর, আত্মা ও মানবতার সমন্বয়ে নারীর নৃত্যচর্চা প্রসঙ্গে। তিনি বলেন, “নাচ সীমাহীন আনন্দের জন্য। মুখের ভাষায় যা প্রকাশ করা যাবে না, সেটা প্রকাশিত হবে শরীরের ভাষার মাধ্যমে। আগামী দিনে নারীরা কেবল নায়িকা হিসেবে নাচ করবে না। তারা নাচ করবে শরীর, আত্মা ও মানবতার সমন্বয়ে। নাচ মানুষের, বিশেষত নারীর অধিকার। তারা মানুষকে বিস্মিত করার জন্য নাচবে না, তারা নাচবে প্রকাশের আনন্দে।”

বিজ্ঞাপন

ক্রিস্টিনা লুনা ডলিনিনা কথা বলেন গুরু-শিষ্য পরম্পরা নিয়ে। এর ভালো-মন্দ নিয়ে বিশ্লেষণ করে দেখান তিনি। দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক গৌরব ঘোষ কথা বলেন যাত্রা শিল্প নিয়ে। যাত্রাকে সুধী সমাজে জনপ্রিয় করার জন্য এতে ব্যালে, অপেরা, ক্যাবারে নৃত্য যুক্ত করা হয়েছে বহু আগে। কিন্তু কারা, কখন, কীভাবে এটি করেছেন এর কোনো নথি কোথাও নেই। সেসব নিয়েই গবেষণা করছেন তিনি। এসব ছাড়াও বৈচিত্রপূর্ণ স্থানে বিশেষ প্রদর্শনী, চলচ্চিত্র প্রদর্শনীও ছিল এই দিনে। এ ছাড়া এই দিন ছিল ওয়ার্ল্ড ড্যান্স অ্যালায়েন্স, এশিয়া প্যাসিফিক-এর বার্ষিক সভা।

এদিন সন্ধ‍্যায় ছিল অনেকগুলো সমসাময়িক নাচের পরিবেশনা। ভারতের শ্রাবস্তী ঘোষের ‘আনশেয়ারড ডিজায়ার্ড’, যুক্তরাষ্ট্রের অনন‍্যা ডান্স থিয়েটার ও বাংলাদেশের তাসকিন আনহার ‘তফাৎ’, আরিফুল ইসলাম অর্ণবের ‘মানুষ’, হংকংয়ের ‘ম‍্যামালিস্টিক : হোয়াট মেক আস হিউম‍্যান’, বন্ধু ওয়েলফেয়ার সোসাইটির ‘বিউটিফুল বাংলাদেশ’ সহ আরও নানা পরিবেশনা।

আজ (সোমবার) ওশান ডান্স ফেস্টিভ্যালের শেষ দিন। সকাল থেকে যথারীতি থাকবে সেমিনার। বিকেল থেকে আন্তর্জাতিক অংশে থাকবে একগুচ্ছ পরিবেশনা। জাতীয় অংশে নৃত‍্যনাট‍্য বাদী-বান্দার রূপকথা।

চারদিনের এ নৃত্য উৎসবের আয়োজন করেছে ওয়ার্ল্ড ড্যান্স অ্যালায়েন্স, এশিয়া প‍্যাসিফিকের বাংলাদেশ শাখা নৃত‍্যযোগ। উৎসব সহযোগী হিসেবে আছে মাত্রা ও চ্যানেল আই। সমর্থন দিচ্ছে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড, অ্যাকাডেমিক সহযোগী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। উৎসবের ভেন্যু সহযোগী মারমেইড বিচ রিসোর্ট।

সারাবাংলা/এএসজি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন